প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ফ্রান্স থেকে স্বাধীনতার প্রস্তাব প্রত্যাখান করলেন নিউ ক্যালেডোনিয়ার বাসিন্দারা

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২] গণভোটে দেখা গেছে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের প্রবাল দ্বীপটির বাসিন্দাদের ৫৩.২৬ শতাংশই ফ্রান্সের অধিনস্ত থাকতে চান। মোট ভোটারের ৮৫.৬ শতাংশ ভোট দিয়েছেন। ২ বছর আগে প্রথম গণভোটেও ৫৬.৭ শতাংশ ভোটার ফ্রান্সে থাকার পক্ষেই ছিলেন। বিবিসি।

[৩] প্রায় ১৭০ বছর ধরে নিউ ক্যালেডোনিয়া ফ্রান্সের অধীনে রয়েছে। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ এই ফলকে তার প্রজাতন্ত্রের প্রতি আস্থা অভিহিত করে স্বাগত জানিয়েছেন। প্রায় ২ দশক আগে যে সিরিজ ভোটের সিদ্ধান্ত হয়েছিলো এটি তারই অংশ। ফ্রান্স ২৪

[৪] ১৯৮০ এর দশকে দেশটিতে স্বাধীনতার দাবিতে  স্থানীয়  কানাক গোষ্ঠী ও দ্বীপেই জন্মানো ইউরোপীয়দের ব্যাপক সংঘাত হয়। কানারা মোট জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ। আর ইউরোপীয়রা মোট জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশ। জনসংখ্যার বাকি অংশ সংকর অথবা ভিন্ন দ্বীপ থেকে আসা অধিবাসীরা।

[৫] ১৯৯৮ সালের নউমেয়া চুক্তি অনুযায়ী স্বাধীনতা বিষয়ে মোট ৩টি গণভোট অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে। শেষ গণভোট অনুষ্ঠিত হবে ২০২২ সালে।

[৭] নিউ ক্যালেডোনিয়ায় বড় ধরণের নিকেল মজুদ রয়েছে। তাই দ্বীপটিকে ফ্রান্স এই অঞ্চলে বড় ধরণের কৌশলগত ও অর্থনৈতিক সম্পদ বিবেচনা করে। এখানে অবশ্য বেশ বড় মাত্রায় স্বায়ত্বশাসন দিয়ে রেখেছে ফ্রান্স। সম্পাদনা: ইকবাল খান

সর্বাধিক পঠিত