প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] তিন বছরে ডোকলাম ও ভুটান সীমান্তে এয়ার বেস, হেলিপোর্টের সংখ্যা দ্বিগুণ করেছে চীন

রাশিদুল ইসলাম : [২] কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের অভিমত ডোকলাম সংঘাতের পর থেকে ভারতের সীমান্তে বিমান প্রতিরক্ষা বৃদ্ধি করার লক্ষ্য হচ্ছে ভুটানকে চাপে রাখা। ভারতের সেনা সূত্র বলছে, গালওয়ানে সংঘাতের আগে থেকেই ডোকলাম নজরে ছিল চীনের । চীন-ভুটান সীমান্তের মধ্য ও পশ্চিম সেক্টরে বহুদিন ধরেই তৎপর রয়েছে লাল ফৌজ। দি ওয়াল

[৩] ২০১৭ সালে ত্রিদেশীয় সীমান্তে সামরিক কাঠামো তৈরি শুরু করে চীন। সেনা মোতায়েনের জন্য রাস্তাও তৈরি করেছে। একই বছর ১৬ জুন থেকে ২৮ আগস্ট ডোকলামে চীন ও ভারতের সেনাবাহিনী সীমান্ত বিবাদে রণসজ্জায় ৭৪ দিন মুখোমুখি দাঁড়িয়ে ছিল। কূটনৈতিক স্তরে আলোচনার পরে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

[৪] নতুন উপগ্রহ চিত্রে দেখা গেছে, ডোকলামের চীন ও ভারতের বাহিনী মুখোমুখি দাঁড়িয়ে থাকার স্থান থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে নতুন সামরিক কাঠামো তৈরি করেছে চীনের সেনারা। সিকিম-চীন সীমান্তে নাকু লা-তে এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম মোতায়েন করেছে লাল সেনা। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা ছাড়াও ডোকলামেও সেনা সংখ্যা বাড়িয়েছে চীন।

[৫] পূর্ব লাদাখের একটা বড় অংশ চীন দাবি করার সঙ্গে সঙ্গে চীন-ভুটান সীমান্তের পশ্চিম সেক্টরে ৩১৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকা ও মধ্য সেক্টরের ৪৯৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় দেশটি আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া। ওই এলাকায় নিয়মিত টহলদারির পাশাপাশি সেনা মোতায়েনের জন্য পরিকাঠামোও গড়ে তুলেছে বেইজিং।

সর্বাধিক পঠিত