প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ট্রান্সফ্যাটজনিত হৃদরোগে মৃত্যুর সর্বাধিক ঝুঁকিতে থাকা ১৫ দেশের অন্যতম বাংলাদেশ

সিরাজুল ইসলাম: [২] বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশে প্রতি বছর হৃদরোগে মৃত্যুও ৪.৪১ শতাংশের জন্য দায়ী ট্রান্সফ্যাট। যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, লাটভিয়া ও স্লোভেনিয়া ট্রান্সফ্যাট নির্মূলে ডব্লিউএইচওর সুপারিশ বাস্তবায়ন করছে। তারা সব ফ্যাট, তেল এবং খাবারে প্রতি ১০০ গ্রাম ফ্যাটে ট্রান্সফ্যাটের সর্বোচ্চ পরিমাণ ২ গ্রামে সীমিত করা অথবা হাইড্রোজেনেটেড অয়েল উৎপাদন ও ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে।
[৩] বাংলাদেশ, ইরান, ভারত, মেক্সিকো, নেপাল, পাকিস্তান, কোরিয়া, মিশর, আজারবাইজান, ভুটান ও ইকুয়েডরকে দ্রুতততম সময়ের মধ্যে পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে ডব্লিউএইচও। ৫৮টি দেশ ট্রান্সফ্যাট নির্মূলের নীতি গ্রহণ করেছে। এতে ২০২১ সালের মধ্যে ৩.২ বিলিয়ন মানুষ সুরক্ষা পাবে। নীতিমালার অভাবে ১০০টির বেশি দেশ ট্রান্সফ্যাট ঝুঁকিতে রয়েছে।
[৪] বুধবার প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে ডব্লিউএইচওর মহাপরিচালক ড. টেড্রস অ্যাডহানম গেব্রেইয়েসুস বলেন, ২০২৩ সালের মধ্যে ট্রান্সফ্যাট মুক্ত বিশ্ব অর্জনের লক্ষ্য অর্জনে বিলম্ব করা যাবে না।
[৫] রিজলভ টু সেভ লাইভসের প্রেসিডেন্ট ডা. টম ফ্রিডেন বলেন, খাদ্যে ট্রান্সফ্যাট মুক্ত করার মাধ্যমে একই সঙ্গে জীবন ও অর্থ দুটোই বাঁচবে। হৃদরোগ প্রতিরোধের মাধ্যমে স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থার ওপর চাপও কমানো যাবে।
[৬] পারশিয়ালি হাইড্রোজেনেটেড অয়েল ব্র্যান্ডগুলেরার নমুনার ৯২ শতাংশে ডবিøউএইচওর সুপারিশ করা ২ শতাংশ মাত্রার চেয়ে বেশি ট্রান্সফ্যাট পেয়েছেন ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হসপিটাল অ্যান্ড রিসার্চ ইন্সটিটিউটের গবেষকরা।

সর্বাধিক পঠিত