প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘অভাব’ বাঁচতে দিল না মা-ছেলেকে

ডেস্ক রিপোর্ট: গাজীপুরের কাপাসিয়ায় অভাবের তাড়নায় বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন মা ও ছেলে। শনিবার রাতে উপজেলার বারিষাব ইউপির বরজাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।মৃতরা হলেন- বরজাপুর গ্রামের ফজলুল হকের স্ত্রী রাজিয়া বেগম ও তার ছেলে সজীব। তবে সজীব শারীরিক প্রতিবন্ধী ছিলেন। ডেইলি বাংলাদেশ

স্থানীয়রা জানায়, বেশ কয়েক বছর আগে তিন ছেলেকে রেখে মারা যান ফজলুল হক। স্ত্রী রাজিয়া বেগম এক শারীরিক প্রতিবন্ধী ছেলেসহ তিন সন্তানকে নিয়ে খুবই দুঃখ-কষ্টে দিন কাটান। বিভিন্ন বাড়িতে কাজ করে ভিটে-মাটিহীন সন্তানদের নিয়ে থাকতেন। সম্প্রতি দুই ছেলে খোরশেদ ও মোরশেদ বিয়ে করে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে আলাদা থাকছেন। ছোট ছেলে শারীরিক প্রতিবন্ধী সজীবকে নিয়ে আলাদা থাকেন রাজিয়া বেগম।

অভাব-অনটনের কারণে সজীব, মা ও পরিবারের অন্যদের খুব বিরক্ত করতেন। এসব সইতে না পেরে শনিবার ছেলেদের সঙ্গে মায়ের কথা কাটাকাটি হয়। রাতে দুঃখ-কষ্ট ও অভিমানে রাজিয়া বেগম প্রথমে ছেলেকে ও পরে নিজেও বিষপান করেন। পরে স্বজনরা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক সজীবকে মৃত ঘোষণা করেন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় রাজিয়া বেগমকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ঢাকার উত্তরার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিলে রাতেই তার মৃত্যু হয়।

কাপাসিয়া থানার এসআই সুমন খান বলেন, মরদেহ দুইটি গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভাবের তাড়নায় মা-ছেলে বিষপান করেছেন বলে প্রথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত