প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মনিরুল ইসলাম: হায় রে পেশাদার সাংবাদিক!!!

মনিরুল ইসলাম:  আজ (২০ আগস্ট) চারটার দিকে অফিসে ক্র্যাব (Crime Reporters’ Association of Bangladesh) এর শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সাথে পূর্ব নির্ধারিত একটা মিটিং করছিলাম। একটি সফল মিটিং শেষে তাঁরা চলে যাবার পরপরই আমার ডিসিদের সাথে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে মিটিং শুরু হয়। এমন সময় আমার অফিস অর্ডালী এসে জানায় যে………. নামের একজন সাংবাদিক আপনার সাথে কথা বলতে চায়। আমি বলেছি যে, আমি মিটিংএ ব্যস্ত, অপেক্ষা করতে বল কিংবা পরে আসতে বল। এর দু’মিনিট পরে আমার মোবাইলে একটা ম্যাসেজ পাই “That’s great Manir bhai. You’re not busy than Home minister or others. Chandabaj Fake Jongi report kora der priority den, NP. but Ignoring the Professional journalists is a kind of Insult, you know well. You can feel honored; but not actually. Mind it plz.”

আমি তাঁকে আমার অফিসে আসতে দাওয়াত দেইনি কিংবা তিনিও আসার আগে আমার সাথে কথা বলে আসেন নি। দেখলাম তিনি আগেও একটি ম্যাসেজ দিয়েছিলেন যা আমি চেক করেনি। বুঝতে পারলাম তিনি যখন এসেছেন তখন আমি CRAB-এর নেতৃবৃন্দের সাথে মিটিং করছিলাম যাদেরকে আমি ‘priority’ দিয়েছি বলে তিনি mean করেছেন। আমি ২০০১ খ্রিঃ CMP তে DB তে এসি হিসেবে কাজ করতাম, তখন থেকেই আমার সাংবাদিকদের সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা শুরু। আমার কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের অনেক বন্ধু এবং সহপাঠি সাংবাদিকতা পেশায় আছে যাদের সাথে আমার নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে। গত সাড়ে এগারো বছর আমি মিডিয়ার সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছি। মিডিয়া জগতের দিকপালদের সাথে আমার কমবেশী Interaction যেমন হয়, আবার একেবারে নবীন সংবাদকর্মীর সাথেও যোগাযোগ হয়। গত ২০১০ খ্রিঃ থেকে আমি ডিএমপির মুখপাত্র হিসেবে কাজ করছি।ডিএমপিতে একটা পূর্নাঙ্গ ‘মিডিয়া বিভাগ’ রয়েছে যারা মিডিয়ার সাথে দৈনন্দিন যোগাযোগ রক্ষা করে, শুধুমাত্র বড় কিংবা গূরুত্বপূর্ন ইস্যু থাকলে আমি কথা বলি। ব্যস্ততার কারনে অনেক সাংবাদিক বন্ধুর ফোন অনেক সময় রিসিভ করতে পারি না, ক্ষেত্র বিশেষে কলব্যাক করি, কখনও ম্যাসেজ দেই, কখনও বা পরে কলব্যাক করবো ভেবে ভুলে যাই। তবে, কৌশলগত কারনে কিছু কিছু ক্ষেত্রে এড়িয়ে যে যাই না বললেও মিথ্যা বলা হবে। কিন্তু আজকেই প্রথম এই ধরনের একটি ম্যাসেজ পেলাম!

ম্যাসেজ পড়ে কিছুটা আশ্চর্য হই তারপর ম্যাসেজের জবাব দেই, তিনিও পাল্টা জবাব দেন। আমি নিজে ২৫ বছর ধরে এই পেশায় আছি, পেশাদার হয়ে ওঠার চেষ্টা করেও এখন পর্যন্ত পেশাদারিত্ব অর্জন করে উঠতে পারিনি। আর এই সন্মানিত ‘পেশাদার সাংবাদিক’ কোন পূর্বোলোচনা ছাড়া অযাচিত ভাবে কোন অফিসে (এটি কোন থানা নয়) প্রবেশ করে কোন পুলিশি সহায়তা নয় ইন্টারভিউ নেওয়ার আবদার পূরন না হওয়ায় এমন রিয়্যাকশন দেখানো কোন ধরনের পেশাদারী আচরণ তা খুব জানতে ইচ্ছে হয়। নিজেকে ছাড়া অন্য সাংবাদিকদের ‘chandabaj’ আখ্যা দেওয়া কোন ধরনের পেশাদারিত্ব তা বুঝতে গবেষনার প্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করি।

উল্লেখ্য, পুলিশে চাকুরী করি, বিদ্যাবুদ্ধি কম তাই আমার জানার ভান্ডার খুব সীমিত। আর এই কারনেই বোধহয় তিনি যে ‘Newsportal’-এ কাজ করেন সেটির নাম আজই প্রথম জানলাম! ‘কত অজানা রে’!!! ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত