প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আর্থিক ও নীতিগত সহায়তা অব্যাহত থাকলে এপ্রিলের মধ্যে সক্ষমতা ফিরে পাবে দেশের পোশাক খাত

শরীফ শাওন: [৩] বিজিএমইএ সহসভাপতি মশিউল আজম সজল বলেন, বিগত মাসগুলোতে উৎপাদন ধরে রাখতে সরকারের সহযোগিতা অনস্বীকার্য ভূমিকা পালন করেছে। এ সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে আগামী ৬ থেকে ৭ মাসের মধ্যে পোশাক খাত পূর্বের অবস্থান ফিরে পাবে।

[৪] তিনি বলেন, পোশাক খাতের সক্ষমতা পুনরুদ্ধারে সর্বপ্রথম ব্যবসাকে সহজীকরণ করতে হবে। ইজ অব ডুয়িং বিজনেজ (ব্যবসা সহজীকরণ) বৈশ্বিক তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ১৬৮তম। কয়েকটি প্রক্রিয়া সহজতর করার মাধ্যমে শততম স্থানে আসা সম্ভব। এতে দেশের জিডিপি উল্লেখযোগ্যহারে বাড়বে।

[৫] তিনি বলেন, পোর্টের জায়গা স্বল্পতা, পণ্যছাড়ে প্রতিবন্ধকতা, মেনমেইড ফাইবারের পোশাক উৎপাদনে অসক্ষমতা, যন্ত্রপাতি ও কাঁচামাল পরিবহনে জটিলতাসহ বিভিন্ন কারণে আমরা সহজীকরণ ব্যবসার বৈশ্বিক তালিকায় পিছিয়ে আছি। ভিয়েতনামে ট্রাকে করে কাঁচামাল আসছে, আমাদের ক্ষেত্রে পোর্টে ১৪ দিন ও কারখানায় আসতে মোট ১৮ দিন সময় লাগে।

[৬] তিনি আরও বলেন, আমাদের ইকোনোমিক ডিপ্লোমেসির মাধ্যমে এগিয়ে যেতে হবে। বিভিন্ন দেশে আমাদের যে হাইকমিশন রয়েছে, আমাদের পণ্যের প্রচারে তাদের আরও সচেষ্ট হতে হবে। হাই ভ্যালু আইটেম উৎপাদনে সক্ষমতা বাড়াতে হবে। ম্যানমেইড ফাইবারের পোশাক রপ্তানিতে গুরুত্ব দিতে হবে। বাংলাদেশের সময় এসেছে বিদেশি বিনিয়োগ উন্মুক্ত করা, এখানে কাঁচামালের কারখানা গড়ে তোলা। সম্পাদনা: রায়হান রাজীব, বাশার নূরু

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত