প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] তাহিরপুরে স্থগিত হলো উন্মুক্ত নীলাম কার্যক্রম

আল-হেলাল, সুনামগঞ্জ : [২] সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় নিলাম বিজ্ঞপ্তি দিয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পাহাড়ি ঢলে ভেসে আসা বালু পাথর ও চুনাপাথর প্রভৃতি খনিজ সম্পদ অপসারনের লক্ষে আহবানকৃত তথাকথিত উন্মুক্ত নিলাম কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

[৩] মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) সকাল ১০টায় সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাট রেস্টহাউস প্রাঙ্গনে এ নিলাম বিজ্ঞপ্তি আহবাণ করা হয়। কিন্তু কথিত নিলাম আহবাণ করার ঘটনা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠে স্থানীয় জনমনে।

[৪] এলাকাবাসী বলেন, খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরো ভিএমডির মহাপরিচালক মোঃ জাফর উল্লাহ গত ১২ জুন পাথর,সিলিকা বালুসহ খনিজ সম্পদের অবৈধ উত্তোলন,বিক্রয় ও পরিবহণ যেখানে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছেন সেখানে জনস্বার্থের প্রশ্ন উত্থাপন করে কিভাবে কারা রাতারাতি মন্ত্রণালয়,ভিএমডি,জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় পর্যন্ত আবেদন ও ফাইলপত্র ঘাটিয়ে তরিঘড়ি করে এই নিলাম আদেশ হাসিল করেছিল। কেউ কেউ বলছেন সীমান্ত এলাকার একজন সাংবাদিক পাথরখেকোদের দালালী করে ঐ নিলাম কার্যক্রমের পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে একটি জাতীয় পত্রিকায় রিপোর্ট প্রকাশ করে। বিনিময়ে সে পাথরখেকো চক্রের কাছ থেকে লাভ করে মোটা অংকের অর্থ।

[৫] প্রশাসনের দেয়া তথ্যমতে চানপুর,নয়াছড়া,বুরুঙ্গাছড়া,বড়ছড়া,লাকমা,চারাগাঁও,কলাগাঁও,রঙ্গুছড়াসহ বিভিন্ন সীমান্ত ছড়া দিয়ে ভারতের মেঘালয় হতে ভেসে আসে প্রায় ২২ লাখ ঘনফুট বালু,২৭ হাজার ঘনফুট পাথর,১ হাজার ঘনফুটের চাইতে বেশী চুনাপাথর। এসব খনিজ সম্পদ সীমান্ত জনপদের বিভিন্ন জনবসতি ও ফসলি জমিতে স্তুপীকৃতভাবে পড়ে থাকায় স্থানীয় এলাকাবাসীর দাবীর প্রেক্ষিতে জনস্বার্থে দ্রুত অপসারনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়।

[৬] কিন্তু স্থানীয়রা আশংকা প্রকাশ করে বলেন, যারা নিলামে নিবে তারা এসব স্থানে পূর্ব থেকে থাকা পাথর,চুনাপাথর ও বালি খনন করে উঠিয়ে নিয়ে যাবে। এতে তৈরী হবে পরিবেশ ধ্বসের। কারণ অতীতেও পাথর খেকোচক্র বিভিন্ন ছড়া খনন করে পাথর উত্তোলন করায় সৃষ্টি হয়েছিল পরিবেশ বিপর্যয়ের। বড়গোপটিলার নীচ কেটে পাথরখেকোরাই টিলাটি ধ্বংস করার দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে। এচক্রটিই চেয়েছিল সরকারী প্রক্রিয়ায় নিলাম নিয়ে তাহিরপুরের সকল বালি পাথর ও চুনাপাথর গ্রাস করে নিতে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত চক্রটির সকল অপচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

[৭] খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোর উপ-পরিচালক মামুনুর রশীদ বলেন,আগ্রহী উপযুক্ত নিলামগ্রহীতা ও কাঙ্কিত দরমূল্য না পাওয়ায় আমরা নিলাম কার্যক্রম স্থগিত করে দিয়েছি। সম্পাদনা : হ্যাপি

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত