প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] করোনার কারণে আমলকির কেজি ১০০০ টাকা

জেরিন আহমেদ : [২] করোনা থেকে রক্ষা পেতে ভিটামিন সি এর গুণের কথা সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে। ফলে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফলের চাহিদা বেড়েছে। এর মধ্যে আমলকি উল্লেখযোগ্য। একদিকে চাহিদা বাড়া অন্যদিকে সরবরাহ কম থাকায় হুঁ হুঁ করে বেড়েছে আমলকির দাম। বার্তা নিউজ ২৪, সময় নিউজ, জাগো নিউজ

[৩] রোববার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার বাজার ও সুপারশপে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতি কেজি আমলকি বিক্রি হচ্ছে ৮৫০-১০০০ টাকায়। খুচরায় ৫০ গ্রাম আমলকি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকা।

[৪] খিলগাঁও তালতলায় ৫০ গ্রাম আমলকি ৬০ টাকা বিক্রি করা আশরাফুল বলেন, এখন বাজারে আমলকির বেশ চাহিদা রয়েছে। কিন্তু বাজারে সেইভাবে সরবরাহ নেই। ৫০ গ্রাম ৬০ টাকা হওয়ার পরও প্রতিদিন যা নিয়ে আসি তা দেখতে দেখতে বিক্রি হয়ে যায়।

[৫] খিলগাঁওয়ে সিপাহীবাগ বাজারে ৫০ গ্রাম আমলকি ৫০ টাকা বিক্রি করা মজনু বলেন, পাইকারিতে আমলকির দাম খুব বেড়েছে। আগে আমরা একশ গ্রাম আমলকি ১০-২০ টাকা বিক্রি করেছি। কিন্তু এখন যে দামে কেনা পড়ছে তাতে ৫০ গ্রাম ৫০ টাকার নিচে বিক্রি করার সুযোগ নেই।

[৬] রামপুরার ব্যবসায়ী আমিনুর বলেন, করোনার কারণে কয়েক মাস ধরে আমলকির চাহিদা অনেক বেড়েছে। আগে বেশিরভাগ মানুষ ৫০ গ্রাম ১০০ গ্রাম করে আমলকি কিনতো। এখন অনেকে ২৫০ গ্রাম, অধাকেজি করে কিনছে। বাজারে আমলকির যে পরিমাণ চাহিদা রয়েছে সরবরাহ তার তুলনায় কম। ঈদের আগেও একশ গ্রাম আমলকি ২০-৩০ টাকায় বিক্রি করেছি। এখন বিক্রি করছি ১০০ টাকায়।

[৭] বিভিন্ন এলাকার বাজারের পাশাপাশি সুপাশপেও চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে আমলকি। স্বপ্নের বনশ্রী শাখায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রতিকেজি আমলকি ৮৫০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। একই দামে আমলকি বিক্রি হচ্ছে স্বপ্নের খিলগাঁও শাখায়।

[৯] স্বপ্নের বনশ্রী শাখার কাওছার হাসান বলেন, আমরা এখন প্রতিকেজি আমলকি ৮৫০ টাকা বিক্রি করেছি।আগে তো আমলকির কেজি ৩০০ টাকা ছিল। এখন দাম এতো বাড়ার কারণ কী জানতে চাইলে তিনি বলেন, ৩০০ টাকা আরও দুই মাস আগে ছিল। এখন এটা অ্যাভেলেবল না। সে কারণেই হয়তো প্রাইসটা একটু বেশি।

[১০] স্বপ্নের খিলগাঁও শাখায় যোগাযোগ করা হলে ছারা বলেন, আমরা আমলকির কেজি ৮৫০ টাকা বিক্রি করেছি। এ সময় দামটা একটু বেশি হয়ে গেলো না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘স্যার আমি তো দাম নির্ধারণ করি না।’

[১১] এদিকে আমলকি নিয়ে উইকিপিডিয়ার তথ্য বলা হয়েছে, প্রাথমিক গবেষণায় দেখা গেছে যে, এটি (আমলকি) ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে পারে। প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, রিউমেটয়েড আর্থ্রাইটিস এবং অস্টিওপোরোসিস রোগে আমলকির রস কিছু কাজ করে। কয়েক ধরনের ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও এর কার্যকারিতার প্রমাণ পাওয়া গেছে। প্যানক্রিয়াটাইটিস রোগেও আমলকি কার্যকর বলে ইঁদুরের উপর চালিত গবেষণায় প্রমাণ মিলেছে। প্যানক্রিয়াটাইটিস রোগের পরে ক্ষতিগ্রস্ত প্যানক্রিয়াস (অগ্ন্যাশয়) -এর ক্ষত সারাতে আমলকি কার্যকর।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত