প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] গণস্বাস্থ্যের অ্যান্টিবডি কিটের মান উন্নয়নে সহযোগিতা করবে ওষুধ প্রশাসন

শিমুল মাহমুদ: [২] আন্তর্জাতিক গাইডলাইনের আলোকে র‌্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্ট কিটের সেনসিটিভিটি ও স্পেসিফিকেশন সর্বনিম্ন লেভেলে যথাক্রমে ৯০ শতাংশ ও ৯৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু গণস্বাস্থ্যের কিটটির মূল্যায়ন প্রতিবেদনে প্রাপ্ত সেনসিটিভিটি ৬৯ দশমিক ৭ শতাংশ এবং স্পেসিফিকেশন ৯৬ শতাংশ। সেনসিটিভিটি গ্রহণযোগ্য মাত্রার নিচে হওয়ায় গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালসের উৎপাদিত কিটটির রেজিস্ট্রেশন না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

[৩] বৃহস্পতিবার ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের ঝঅজঝ-ঈড়া-২-অহঃরনড়ফু ঃবংঃ শরঃ রেজিস্ট্রেশনের নীতিমালা মোতাবেক গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র আবেদিত এজ-ঈঙঠওউ-১৯ জধঢ়রফ অহঃরনড়ফু উড়ঃ ইড়ষঃ ঞবংঃ কিটের রেজিস্ট্রেশন সম্ভব হল না। তবে পরবর্তীতে এই কিটটির উন্নয়নের বিষয়ে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর প্রয়োজনীয় টেকনিক্যাল সহযোগিতা প্রদান করবে।

[৪] ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, আমাদের অ্যান্টিবডি কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষা করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল যে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে, সেখানে কিটের অনুমোদন দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। ওষুধ প্রশাসন কিটের অনুমতি না দিয়ে অন্যায় কাজ করেছে। আমরা একটা কমিটি করেছি। পরে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাবো।

[৫] ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সালাহ উদ্দিন জানান, কিটের মান উন্নয়ন শেষে আবারও কার্যকারিতা পরীক্ষা যেতে হবে। কার্যকারিতা পরীক্ষা শেষে আবারও বিশেষ কমিটির কাছে যাবে। সেখানে সন্তুষ্ট হলে এরপর নিবন্ধনে আসবে। সম্পাদনা : রায়হান রাজীব

সর্বাধিক পঠিত