প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাগেরহাটে পিসি আর ল্যাব না থাকায় কোভিড-১৯ সেবা নিয়ে হতাশা

শেখ সাইফুল, বাগেরহাট প্রতিনিধি : [২] বাগেরহাটে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় স্বাস্থ্য বিভাগের পর্যাপ্ত সেবা ও সুরক্ষার না থাকায় সকল শ্রেণীর মানুষের মধ্যে চরম হতাশা ও উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। বাগেরহাটের কোভিড-১৯ নমুনা পরীক্ষার ফল পেতে এক সপ্তাহ থেকে ১৪ দিনেরও বেশি সময় লাগায় রোগী ও তার স্বজনদের মধ্যে বিরাজ করছে চরম হতাশা। উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সচেতন নাগরিকরা।

[৩] সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, বাগেরহাট জেলায় এ পর্যন্ত ১৭৩০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৫৩০ জনের রিপোর্ট পাওয়া গেছে। রিপোর্টে ১১১ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। ২২২ জনের রিপোর্ট এখনও অপেক্ষমান। এদের মধ্যে ১২০টি নমুনা ১৪ থেকে ১৬ (৬,৭,৮ জুন) দিন আগে পাঠানো হয়েছে। নমুনাগুলো খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসি আর ল্যাবে রয়েছে। কবে নাগাদ এই রিপোর্ট পাওয়া যাবে তাও সঠিক করে বলতে পারছে না স্বাস্থ্য বিভাগ।

[৪] এদিকে, নমুনা দেয়ার পর রিপোর্ট পেতে বিলম্ব হওয়ায় হতাশায় প্রকাশ করেছেন রোগী ও রোগীর স্বজনরা। রিপোর্ট নেয়া সন্দেহভাজন রোগীর প্রতিবেশীরাও এক ধরণের আতঙ্কে থাকছে।কোভিড-১৯ পরীক্ষার ক্ষেত্রে প্রায় একই চিত্র ১৮ লাখ লোক অধ্যুষিত বাগেরহাট জেলার অধিকাংশ ক্ষেত্রে। এমন ঘটনা আরও একাধিক রয়েছে।

[৫] বাগেরহাট সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সভাপতি অধ্যাপক চৌধুরী আব্দুর রব বলেন, প্রাণঘাতি কোভিড-১৯ পরীক্ষার ফলাফল পেতে অতিবিলম্ব হওয়া ভয়াবহ। কারণ এদের মধ্যে যারা পজিটিভ, তারা অজান্তে সামাজিক সংক্রমন ছড়াচ্ছে। ফলে ভয়াবহ এ রোগের দ্রুত বিস্তার হচ্ছে।

[৮] বাগেরহাট প্রেসক্লাবের সভাপতি এ্যাড. মোজাফফর হোসেন বলেন, কোভিড-১৯ পরীক্ষার ফল দেরিতে আসা খুব দুঃখজনক। এটা মেনে নেয়া যায় না। ১৮ লক্ষ লোক অধ্যুষিত এ জেলায় কোনো পিসিআর ল্যাব নেই। তাই কোভিড-১৯ মহা-দুর্যোগের সময়ে সঠিক পরীক্ষা ও এ জেলার মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে এখানে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের দাবি জানান তিনি।

[৯] বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কে.এম হুমায়ুন কবির বলেন, বাগেরহাট জেলা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হচ্ছে। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে স্থানীয় নমুনার চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় ১২০টি নমুনা অপেক্ষমান রয়েছে। আমরা যোগাযোগ করেছে যাতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে এই নমুনা গুলোর পরীক্ষা রিপোর্ট পাওয়া যায়। আর যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পিসিআর ল্যাবে যেসব নমুনা পাঠানো হচ্ছে তা দ্রুত পাওয়া যাচ্ছে।

[১০] বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ বলেন, বাগেরহাটে পিসি আর মেশিন স্থাপনের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে লিখিতভাবে হয়েছে। আমরা আশা করি বাগেরহাটে পিসি আর ল্যাব স্থাপন হলে বাগেরহাটের নমুনা গুলোর রিপোর্ট স্বাস্থ্য বিভাগ দ্রুত পাবে। সময়মত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া যাবে।

[১১] বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র বাগেরহাট সদর আসনের সংসদ শেখ সারহান নাসের তন্ময় বলেন, বাগেরহাটে পিসিআর ল্যাব না থাকায় এবং খুলনা ও যশোর ল্যাবে অতিরিক্ত চাপ থাকায় সমস্যা হচ্ছে। তবে ইতোমধ্যে এ জেলায় দ্রুত পিসিআর ল্যাব প্রতিষ্টার জন্য সর্বাত্মক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে ডিও লেটার দেয়া হয়েছে, বিষয়টি মনিটরিং করা হচ্ছে। দ্রুত এ সমস্যার সমাধান হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তাছাড়া, নমুনা সংগ্রহ করা ব্যক্তিকে রেজাল্ট না আসা পর্যন্ত হোমকোয়ারেন্টাইনে রাখা উচিৎ বলে তিনি জানান। সম্পাদনা : হ্যাপি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ