প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] তিন শিফটে সকাল ৯টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার প্রস্তাব জবি ভিসির

ডেস্ক রিপোর্ট : [২]কভিড-১৯ ভাইরাসের জীবন আছে কিনা জানি না। শুনেছি এটা নাকি RNA, RNA জীবন না জীবনের অংশ সেটা ভালো বলতে পারবেন জীব বিজ্ঞানীরা (যেমন – কুমিল্লা অথবা যশোর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য )। তবে এটা আমি নিশ্চিত করোনা ভাইরাস ধনী-গরীব, সাদা-কালো, নাস্তিক-আস্তিক কিছুই চেনে না। দিন রাতের পার্থক্যও বোঝে না।

[৩]করোনা ডেঙ্গুর জীবাণু বহনকারী এডিস মশার মতো না, যা কেবল সন্ধ্যায় কামড় দেয়। করোনার আক্রমণ দিনে রাতে যে কোন সময় হতে পারে। তাহলে ‘স্বাস্থ্যবিধি’ মেনে ‘সীমিত পরিসরে’ বাজার-দোকান যদি খুলতে হয় তবে সেটা অতি অল্প সময়ের জন্য কেন? অল্প সময়ের জন্য (১০টা থেকে ৪টা) দোকান খোলা থাকলে ক্রেতারা সেখানে হুমড়ি খেয়ে পড়বে এবং ভিড় বাড়বে।

[৪]যদি অর্থনৈতিক কারণে এবং জীবিকার তাগিদে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান খোলা রাখতে হয় তবে সেটা দীর্ঘ সময় (যেমন সকাল ৯ টা থেকে রাত ১১টা ) পর্যন্ত খোলা রাখলেই বরং বাজার বা দোকানে ‘সামাজিক দূরত্ব’ বজায় থাকবে। এক্ষেত্রে দোকানের কর্মচারীদের একাধিক শিফট করা যেতে পারে।

[৫]ক্রেতাদের জন্যেও সময় ভাগ করা যেতে পারে। যেমন- যাদের বয়স পঞ্চাশের বেশি তারা দোকানে যাবেন সকাল ন’টা থেকে দুইটার মধ্যে, পঞ্চাশের কম বয়সীরা যাবেন ২ টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টার মধ্যে, যারা সপরিবারে বাজারে যাবেন তারা সন্ধ্যা ৭ টা থেকে রাত ১১ টার মধ্যে। ভিড় কমানোর জন্য সাপ্তাহিক বন্ধের দিনগুলোতেও আপাতত বাজার খোলা রাখা যেতে পারে। অর্থাৎ সপ্তাহের সব কয়দিন সবকটি মার্কেট/দোকান দীর্ঘ সময় ধরে খোলা থাকলে দোকানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ‘সামাজিক দূরত্ব’ বজায় রাখার যে নসিহত মহামারী বিশেষজ্ঞরা করছেন তা প্রতিপালনে সহায়ক হবে।

লেখক: অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। উপাচার্য, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

লেখা: ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত