প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাউফলে যুবলীগ কর্মী হত্যা, প্রধান আসামী আওয়ামী লীগ নেতা মেয়র জুয়েল

নিজস্ব প্রতিবেদক : [২] তোরণ নির্মাণকে কেন্দ্র করে পটুয়াখালীর বাউফলে আওয়ামীলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে যুবলীগ কর্মী তাপস দাস (২৯) নিহতের ঘটনায় জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও বাউফল পৌর মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলকে প্রধান আসামী করে মামলা দায়েল করা হয়েছে। সোমবার রাত সাড়ে দশটায় নিহত তাপসের বড় ভাই পংকজ দাস বাদী হয়ে ৩৫জনের নাম উল্ল্যেখ করে এ মামলা করেন। মামলায় দৈনিক প্রথম আলোর বাউফল প্রতিনিধি এবিএম মিজানুর রহমানেও আসামী করা হয়েছে। এ দিকে হত্যার সাথে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে সোমবার বিকাল সাড়ে তিনটায় পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড থেকে মেয়র সমর্থিত সোহাগ (৩৫) ও কার্তিক (৩৫) নামের দুই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

[৩] এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল মঙ্গলবার আওয়ামীলীগের দুই পক্ষই বাউফলে পৃথক পৃথক সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

[৪] মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় পৌর ভবনে মেয়রের পক্ষে কাউন্সিলর বাবুল খান সংবাদ সমম্মেলন করে মেয়র জুয়েলকে নির্দোষ দাবি করেন। অপর দিকে বাউফল উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মোতালেব হাওলাদার যুবলীগ কর্মী তাপস দাস হত্যাসহ আরো ১৫ কর্মীকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করার জন্য মেয়র জুয়েলকে দায়ী করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, জিয়াউল হক জুয়েল মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর উপজেলার যুব সমাজের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে শান্ত বাউফলকে অশান্ত করে রেখেছেন। এ সময় উপস্থিত নিহত তাপসের বড় ভাই পংকজ দাস তার ভাইয়ের খুনের বিবরন দিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

[৫] উল্ল্যেখ, বাউফল থানা ও জেলা পরিষদ বাংলোর সামনে তোরণ নির্মানের ঘটনাকে কেন্দ্র করে রবিবার দুপুরে সাবেক চিফ হুইপ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আসম ফিরোজের সমর্থিত নেতা কর্মীদের সাথে বাউফল পৌর মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় আসম ফিরোজ সমর্থিত যুবলীগ কর্মী তাপস দাস (২৯)কে ধারালো অ¯্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে মেয়র সমর্থিত কর্মীরা। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ১৫জন নেতা কর্মী আহত হয়। ওই দিনই গুরুতর আহত অবস্থায় তাপস ও ইমাম নামের আরেক যুবলীগ কর্মীকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে পাঠালে চিকিৎসারত অবস্থায় ওই দিনই রাত সাড়ে ৭টায় তাপসের মৃত্যু হয়।

[৬] বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সোমবার রাত সাড়ে দশটায় তাপস হত্যা ঘটনায় পৌর মেয়র জুয়েলকে প্রধান আসামী করে ৩৫জনের নাম উল্লেখখ করে একটি মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত