প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বিধ্বস্ত বাংলা দেখে গর্ভস্থ সন্তানকে কান্না ভেজা চিঠি শুভশ্রীর

মুসফিরাহ হাবীব: [২] করোনাভাইরাস, আম্পান- একের পর এক দুর্যোগ থেকে নিস্তার মিলছে না। ভয়ঙ্কর সাইক্লোনে পশ্চিমবঙ্গে মারা গেছে ৭০ জনেরও বেশি মানুষ। ঘর-বাড়ি হারিয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছে না জানি আরো কতজন। কলকাতা হয়েছে বিধ্বস্ত। এমন করুণ অবস্থা দেখে নিজেকে স্থির রাখতে পারলেন না অভিনেত্রী শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায়। গর্ভস্থ সন্তানের জন্য কলম ধরলেন। জানালেন ছোট্ট এই প্রাণের সমস্ত না পাওয়া এবং এক মায়ের অসহায়তার কথা।

[৩] নিজের সোশাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে শেয়ার করলেন ‘তোর জন্য’ শিরোনামের এই লেখা। তাতে শুভশ্রী লিখেছেন, “মনটা বড্ড খারাপ। সারাক্ষণ চেষ্টা করছি মন ঠিক রাখার, কিছুতেই পারছি না। সবাই বলে গর্ভবতী হলে হাসিখুশি থাকতে হয়, কী করে থাকব বল তো! তোর কথা ভেবেই সব ভোলার চেষ্টা করছি। কিন্তু এত ধ্বংসস্তূপ আগে কখনও দেখিনি যে… কান্না চেপে রাখতে পারছি না। মনটাকে বোঝানোর চেষ্টা করছি, যে না, এখন মন খারাপ করলে চলে না! ভাবছি তুই কী ভাববি… কিন্তু নিজেকে আটকে রাখতে পারছি না।”

[৪] “জানিস কত হাজার হাজার গাছ মাটিতে লুটিয়ে পড়েছে। সেগুলোকে আর ফেরানো যাবে না। আমি যে গাছ এত ভালবাসতাম আগে কখনও অনুভব করিনি। গাছের জন্য এত মনখারাপ হবে ভাবিনি। তোকে গাছে ছাওয়া ময়দানগুলোর সবুজ দৃশ্য আর দেখানো হল না। সেই বড় বড় গাছগুলো…সেগুলো তো শুধু গাছ ছিল না। ছিল হাজার হাজার পাখির বাসা। তুই দেখতে পেলি না।”

[৫] “আজ সারাদিন একটা ছবি সোশাল মিডিয়ায় ঘুরছে, বছর চারেকের একটা বাচ্চা বুক সমান পানি পেরিয়ে খাবার নিতে এসেছে ত্রাণ শিবিরে। এরপরও তোর কথা ভেবে কী করে বেশি বেশি খাই বলতো? এই তো আর কিছু বছর পরে তুইও ওর সমানই হবি। ও তো তোর মতোই। কী দোষ করেছিল ও?” মাঝে মাঝে চিৎকার করে প্রকৃতিকে বলতে ইচ্ছে করছে.. আর কত? আবার ভয় লাগছে। পাছে, পালটা প্রশ্ন আসে!

[৬] পৃথিবীর হৃৎপিন্ড যখন দাউ দাউ করে জ্বলছিল, কোথায় ছিল তোদের মনুষ্যত্ব? প্রকৃতির কোল কেটে যখন ফ্ল্যাটবাড়ি বানাস, তখন তোদের বিবেকে বাধে না? জঙ্গলের মাঝে রেললাইন পাতিস, তাতে কাটা পড়ে হাতির দল।কটা প্রশ্ন করিস তোরা মানুষরা? ছি-ছি সত্যিই কোনও উত্তর দিতে পারব না। সেজন্যই চুপ করে আছি। ভাবছি সবকিছুর বদলা নিতেই কী এসেছে এ বছরটা? সবই কি শেষ হয়ে যাবে? আমি বিশ্বাস করতে চাই না। আমি বিশ্বাস করি শুধু ধ্বংস না সৃষ্টিও করবে এই পৃথিবী। শুধু সময়ের অপেক্ষা করতে হবে। রাতের পর দিনের অপেক্ষা।”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত