প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্বের মধ্যে সর্বোচ্চ, লকডাউন শিথিলের পথে একাধিক অঙ্গরাজ্য

শাহনাজ বেগম : [২] যুক্তরাষ্ট্রে করোনা মহামারীতে স্বাস্থ্য উদ্বেগ সত্ত্বেও সোমবার থেকোই বিভিন্ন অঙ্গ রাজ্যের গভর্নররা অর্থনীতি সচল করার পরিকল্পনা নিয়েছেন। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা খুব শিগগিরই স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের বিরুদ্ধে সতর্ক করেছিলেন কারণ দেশটিতে এরইমধ্যে ৫৬ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় মারা গেছেন। নিউইয়র্ক টাইমস

[৩] অঙ্গরাজ্য টেক্সাসে ৩০ মিলিয়ন জনসংখ্যা বসবাস। সেখানে অর্থনীতি পুনরায় খোলার দিকে সবচেয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেন গভর্নর গ্রেগ অ্যাবোট। তার ঘোষণা অনুযায়ী সোমবার থেকে স্টোর, রেস্তোরা, সিনেমা এবং মলগুলো সীমিত আকারে পুনরায় চালু করে। রয়টার্স

[৪] এক মাস অবরুদ্ধ থাকার পর সোমবার থেকে অঙ্গরাজ্য জর্জিয়ার যেসব অঞ্চলে আক্রান্ত ব্যক্তি কম, সেসব অঞ্চলে বিধিনিষেধ শিথিল করেছেন এ অঙ্গরাজ্যের গভর্নর। গত সপ্তাহে জর্জিয়ায় চুলকাটার সেলুন, ট্যাটু পার্লারসহ বেশ কিছু দোকান খোলার অনুমতি দেয়া হয়। এনবিসি

[৫] চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের হুঁশিয়ারি সত্ত্বেও মনটানা ও মিসিসিপিতে জরুরি নয় এমন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে শুরু করেছে।

[৬] কয়েক সপ্তাহ কঠোর লকডাউনের পর অর্থনৈতিক কার্যক্রম আবার শুরুর পদক্ষেপ নিচ্ছে আলাস্কা, ওকলাহোমা ও সাউথ ক্যারোলিনা।

[৭] কাস্টমারের উপস্থিতি কম থাকায় আটলান্টার কয়েকজন রেস্টুরেন্টের মালিক এবং ব্যবস্থাপক এখনো কাজ শুরু করার মতো নিরাপদ বোধ করছেন না।

[৮] মহামারিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত অঙ্গরাজ্য নিউইয়র্ক এবং নিউজার্সিতে সীমিত পরিসরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে আরও কয়েক সপ্তাহ সময় লাগবে, এমন ইঙ্গিতই দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট গভর্নররা।

[৮] জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১০ লাখ ১০ হাজার ৫০৭ জন এবং মারা গেছেন ৫৬ হাজার ৮০৩ জন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত