প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দর্শনার্থীশূন্য চিড়িয়াখানায় শান্তিতে আছে প্রাণীকুল

ডেস্ক রিপোর্ট : [২] রাজধানীর মিরপুরে জাতীয় চিড়িয়াখানায় দর্শনার্থী প্রবেশ বন্ধ থাকায় শান্তিতে দিন পার করছে প্রাণীকুল। সুনসান চিড়িয়াখানায় পশুপাখিরা খাঁচার মধ্যে স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারছে, কেউ তাদের বিরক্ত করছে না। পেট ভরে খেয়ে নিজেদের মতো সময় পার করতে দেখা গেছে তাদের।

চিড়িয়াখানা বন্ধ থাকলেও প্রাণীকুলকে সময়মতো খাবার দেয়া, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ এই গরমে পরিচর্যা বাড়ানো হয়েছে বলে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। রোববার জাতীয় চিড়িয়াখানায় সরেজমিনে এমন চিত্র দেখা গেছে।

[৩] সরেজমিনে দেখা গেছে, দর্শনার্থীদের বিচরণ না থাকায় চিড়িয়াখানায় এক নতুন পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। প্রাণীদের দেখভাল করতে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও পশুচিকিৎসকরা তাদের নিজ নিজ দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছেন। সময়মতো সব প্রাণীকে খাবার দেয়া হচ্ছে। সেসব খাবার দলবেঁধে খেয়ে কেউ বিশ্রাম নিচ্ছে, কেউ খেলাধুলা করছে, কেউ আবার নিজের বাচ্চা নিয়ে ব্যস্ত। যেন প্রাণীরা তাদের নিজ আস্তানায় নিজেদের মতো থাকার সুযোগ পেয়েছে।

চিড়িয়াখানার খাবার দেয়ার কাজে নিয়োজিত কর্মচারীরা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে চাকরি করলেও চিড়িয়াখানায় এমন পরিস্থিতি কখনো সৃষ্টি হতে দেখিনি। কখনো এত দীর্ঘ সময় চিড়িয়াখানা বন্ধ থাকে না বরং বন্ধের দিনগুলোতে আরও বেশি দর্শনার্থী হয়।

[৪] তারা বলেন, চিড়িয়াখানায় জনমানুষের প্রবেশ না থাকায় প্রাণীরা অনেক শান্তিতে রয়েছে। পেট ভরে খাবার খাচ্ছে নিজেদের ইচ্ছামতো সময় পার করতে পারছে। কেউ তাদের ও তাদের সন্তানদের বিরক্ত করছে না বলে তারা অনেক অনন্দিত। যেন বন্যপ্রাণীকুল বনের মধ্যে রয়েছে বলে জানান তারা।

[৫] কথা হলে জাতীয় চিড়িয়াখানার কিউরেটর মো. নূরুল ইসলাম টানা বন্ধ থাকায় চিড়িয়াখানার প্রাণীগুলো বেশ উৎফুল্ল রয়েছে বলে জানান।

তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত বেশি মানুষ দেখতে পেয়ে প্রাণীরা চুপ করে খাঁচার এককোনে বসে থাকে। চলাফেরাও কম করে। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে চিড়িয়াখানা বন্ধ থাকায় প্রাণীরা খাঁচার সামনে আসছে। সকাল না হতেই ডাকাডাকি করছে। খাওয়াদাওয়াও আগের চেয়ে বেশি করছে। প্রাণীরা আগের মতো আর খাবার নষ্ট করছে না। বন্ধ থাকলেও বন্যপ্রাণীদের পরিচর্যাও করে যেতে হবে। বর্তমানে গরমে বাঘ, সিংহ, ভাল্লুকসহ বড় প্রাণীদের খাঁচার ভেতরে-বাহিরে পানি দেয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে এসব প্রাণীকে স্যালাইন ও ভিটামিন পানির সঙ্গে খাওয়ানো হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

[৬] জানা গেছে, দেশের সবচেয়ে বড় এ চিড়িয়াখানা ১৮৬ একর জায়গা নিয়ে গঠিত। ১৯৭৪ সাল থেকে প্রতিদিন দূর-দূরান্ত থেকে আসেন হাজারো দর্শনার্থী। চিড়িয়াখানায় রয়েছে মাংসাশী আট প্রজাতির ৩৮টি প্রাণী, ১৯ প্রজাতির বৃহৎপ্রাণী ২৭১টি, ১৮ প্রজাতির ক্ষুদ্র স্তন্যপায়ী ১৯৮টি। এছাড়া রয়েছে ১০ প্রজাতির সরীসৃপ ৭২টি, ৫৬ প্রজাতির ১১৬২টি পাখি, অ্যাকুরিয়ামে রক্ষিত মৎস্য প্রজাতিসহ ১৩৬ প্রজাতির ২৬২৭টি প্রাণী। সব মিলিয়ে রয়েছে ১৩৭টি পশুপাখির খাঁচা।

[৭] সম্প্রতি চিড়িয়াখানায় অনেক প্রাণী প্রজনন করেছে। গত কয়েক মাস আগে জেব্রা, জিরাফ, ইমপালা, ৪০টি ইমু পাখির বাচ্চা, গয়াল, মায়া হরিণ, চিত্রা হরিণ, ময়ূর, লাভ বার্ড বাচ্চা দিয়েছে। কয়েকটি প্রাণীর বাচ্চা বড় হওয়ায় নতুন শেড তৈরি করে আলাদা করে ছাড়া হয়েছে। নতুন করে আনা হয়েছে উট, সিংহ, ভাল্লুক, রয়েল বেঙ্গল টাইগারসহ বেশ কয়েকটি প্রাণী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত