প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আমতলীতে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও যানবাহন বন্ধে উপজেলায় প্রশাসনের টহল

জিয়া উদ্দিন সিদ্দিকী, আমতলী প্রতিনিধি : [২] বরগুনার আমতলী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় খাবার হোটেল, মাছ-মাংস, কাঁচা বাজার, ফলের দোকান ও ফার্মেসী ছাড়া সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা অনুযায়ী বন্ধ করে দেয়া হয়েছে দূরপাল্লা রুটে চলাচলরত সকল প্রকার যানবাহন ও লঞ্চ। নির্দেশ বাস্তবায়নে টহল দিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন।

[৩] গতকাল মঙ্গলবার দুপুরের পর থেকে আমতলী উপজেলার সাথে দূরপাল্লা রুটে চলাচলরত সকল যানবাহন ও যাত্রীবাহী লঞ্চ বন্ধ করে দেয়া, দিনে খাবার হোটেল, মাছ-মাংস, কাঁচা বাজার, ফলের দোকান, ফার্মেসী ছাড়া সকল প্রকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা, সন্ধ্যার পরে সকল দোকানপাট ও জনসাধারণকে ঘরে থাকার জন্য উপজেলার সর্বত্র মাইকিং করে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। এ নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য মঙ্গলবার সন্ধ্যার পরে উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন ও ওসি মোঃ আবুল বাশারের নেতৃত্বে পুলিশ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ও পৌরশহরের বেশ কয়েকটি স্পটে টহল দিয়ে দোকান পাট বন্ধ হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করেন।

[৪] করোনার কারনে মানুষকে ঘরে থাকার জন্য বলা হলেও তাদের অনেকেই সেই নির্দেশ মানছেন না। আবার অনেক জায়গায় একসাথে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশের গাড়ী দেখতে পেয়ে মানুষের মধ্যে ছোটাছুটি ও হুলুস্থলের ঘটনাও ঘটছে। পুলিশ ও নির্বাহী অফিসারের আসার খবর শুনে শহরের মানুষের মধ্যে আতংক কম বিরাজ করলেও গ্রামের বাজারগুলোতে আড্ডা দেয়া মানুষের মধ্যে কিছুটা আতংক বিরাজ করে। এ সময় অনেক এলাকায় পুলিশ দেখে এলাকা ফাঁকা হয়ে যায়। যে যার মত করে দৌড়ে বাড়িতে চলে যাওয়ার ঘটনাও ঘটে।

[৫] অপরদিকে মঙ্গলবার দুপুরে পর থেকে আমতলীর সাথে দূরপাল্লার যানবাহন, গণপরিবহন ও লঞ্চ বন্ধ করে দেওয়া হলেও অভ্যান্তরিন রুটে সীমিত আকারে কিছু যানবাহন চলাচল করে। বুধবার সকালে দূরপাল্লার বিভিন্ন রুটের যানবাহন আমতলীতে এসেছে। এছাড়া রিকশা, অটোবাইক, ভাড়ায় চালিত মোটর সাইকেল ও মাহেন্দ্রা গাড়ীর চলাচল ছিল পূর্বেরমত একদম স্বাভাবিক।

[৬] আমতলী থানার ওসি মো. আবুল বাশার জানান, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব যাতে এ এলাকায় ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য সকল জনসাধারণকে ঘরে থাকতে ও সন্ধ্যার পরে সকল দোকানপাট বন্ধ রাখার জন্য বলা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য আমরা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় টহল দিয়েছি।

[৭] উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন মুঠোফোনে বলেন, করোনাভাইরাসে এ উপজেলায় এখনো কারো আক্রান্ত হওয়ার সংবাদ পাইনি। তাই আগাম সতর্কতার জন্য আমরা কিছু পদক্ষেপ নিয়েছি। এরই অংশ হিসেবে মঙ্গলবার থেকে উপজেলার খাবার হোটেল, মাছ-মাংস, কাঁচা বাজার, ফলের দোকান ও ফার্মেসী ছাড়া সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে ও লোকজনকে ঘরে থাকতে বলা হয়েছে।

[৮] তিনি আরো বলেন, নির্দেশ অমান্য করে যদি গণপরিবহন ও দূরপাল্লা রুটের যাহবাহন চলাচল করে তাদের বিরুদ্ধে আইননানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। সম্পাদনা:জেরিন আহমেদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত