প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কোভিড ১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ইতালিতে একদিনে ৪৭৫ জনের মৃত্যু

ইসমাইল হোসেন স্বপন, ইতালি : [২] প্রাণঘাতী কোভিড ১৯ এর থাবায় ইউরোপের দেশ ইতালিতে মৃতের সংখ্যা ক্রমশ বেড়েই চলেছে। বুধবার একদিনে আরও ৪৭৫ জন মারা যাওয়ায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই হাজার ৯’শ ৭৮ জন। এখন পর্যন্ত যে কোনও দেশে করোনায় একদিনে এটাই সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড।

[৩] এদিকে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৪ হাজার ২০৭ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩৫ হাজার ৭১৩ জন।

[৪] এছাড়া গত একদিনে এক হাজার ৮৪ জন কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়েছেন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত দেশটিতে মহামারী করোনার সাথে লড়াই করে মোট সুস্থ হয়েছেন চার হাজার ২৫ জন।

[৫] করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে দেশটির সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপের পাশাপাশি গত সপ্তাহের সোমবার (৯ মার্চ) থেকে জরুরী অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।

[৬] জরুরী আইন অমান্য করে অপ্রয়োজনে বাহিরে ঘুরাঘুরি করার কারণে গত ৭ দিনে দেশটির পুলিশ প্রশাসন ৪৩ হাজার জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে ।

[৭] এদিকে গত রবিবার (১৫ মার্চ) সন্ধায় জরুরি অবস্থা আইন অমান্য করায় ইতালির নাপোলি শহর থেকে ৯ বাংলাদেশিকে আটক করেছে দেশটির পুলিশ।

[৮] ইতালির সরকার করোনা সংকট মোকাবিলায় জন্য সাড়ে তিনশ মিলিয়ন ইউরোর বাজেট ঘোষনা করেছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী নিশ্চিত করেছেন, করোনা সংকটের জন্য ইতালিতে কেউ চাকরি হারাবে না।

[৯] পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার আগে পর্যন্ত যারা কর্মহীন থাকবে তারা বেতনের আশি ভাগ অর্থ পাবে।সকল প্রকারের বিল, বাসাভাড়া, লোনের কিস্তি স্থগিত করে রাখা যাবে।

[১০] হোম কোয়ারেন্টাই অমান্যকারীদের পুলিশ ব্যাপক শাস্তি ও জরিমাণা আরোপ করছে। স্টেশনে ঘুমানো ছিন্নমূল মানুষদের পুলিশ তুলে নিয়ে গেছে নিরাপদ আশ্রয়ে।

[১১] কোভিড-১৯ এ আক্রান হয়ে প্রাণ হারান পরিবারের সকল সদস্যদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বাসার দরজার নিচ দিয়ে তাঁরা পেপার ওয়ার্ক শেষ করছেন এমনকিব শেষকৃত্য ছাড়াই সমাহিত হওয়া প্রিয়জনদের ছবি দরজার নিচ দিয়েই পাঠাচ্ছেন সিমিটারিতে স্থাপনের জন্য।

[১২] জানা গেছে, চীনের সাংহাই থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের দ্বিতীয় দল ৯ টন চিকিৎসা সরঞ্জাম নিয়ে (১৮ মার্চ) রওয়ান হয়েছেন ইতালির বাণিজ্যিক রাজধানী মিলানের উদ্দেশে।

[১৩] কৃত্রিমভাবে শ্বাস-প্রশ্বাস চালু রাখা এবং মনিটর ছাড়াও অন্যান্য সরঞ্জাম নিয়ে আসছেন তাঁরা। মিলানে অবতরণ করার পর চীনা চিকিৎসক দল দ্রুত যোগ দেবেন স্থানীয় ইতালিয়ান চিকিৎসকদের সাথে।

[১৪] মহামারি করোনা থেকে ইতালিকে বাচাতে দেশটির সরকার সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করে চলেছেন।

সর্বাধিক পঠিত