প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]এতিম শিশুদের ভুয়া তালিকা তৈরি করে বরগুনায় চলছে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ

আরিফ হোসেন : [২] আছে সাইনবোর্ড আর জরাজীর্ণ ঘর। আছে এতিম শিশুদের তালিকাও। কিন্তু বাস্তবে নেই কেউ। স্থানীয়দের অভিযোগ, এতিম শিশু দেখিয়ে টাকা উত্তোলনের পরে তাদের আর দেখা মেলেনা। অভিযুক্তদের দাবি, দেশে কোন এতিম শিশু নেই। চ্যানেল২৪

[৩] বরগুনা সদর উপজেলার গাজী মাহমুদ আদর্শ শিশু সদন এটি। খাতাপত্রের হিসেব অনুযায়ী এখানে এতিমের সংখ্যা ৩০ জন দেখানো হলেও প্রকৃতপক্ষে একজনও নেই। অথচ ১৯৯৫ সাল থেকে এতিমের হিসেব দেখিয়ে বছরে খরচ দেখানো হচ্ছে ৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা।

[৪] শুধু এই প্রতিষ্ঠানই নয় একই অবস্থা জেলার উত্তর খাজুরা ইসলামিয়া শিশু সদন, সাহেবের হাওলা রফেজিয়া শিশু সদন, কোট বাড়ীয়া কাদেরিয়া শিশু সদনসহ জেলার একাধিক এতিমখানার। স্থানীয়দের অভিযোগ, শুরুতে কিছু এতিম শিশু থাকলেও অনুদানের টাকা আসার পর থেকে আর দেখা মেলেনা তাদের।

[৫] বরগুনার পাবলিক পলিসি ফোরামের সভাপতি মো. হাসানুর রহমান ঝন্টু বলেন, এতিম খানার নামে বরাদ্ধের টাকা আত্মসাৎ করা হচ্ছে।

[৬] এতিমখানা পরিচালক জানান, দেশে বর্তমানে এতিম না থাকায় খালি পড়ে আছে এসব শিশুসদন।

[৭] সমাজসেবা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মোস্তফা মাহমুদ সারোয়ার বলেন, এতিমের নামে টাকা আত্মসাতের বিষয়ে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

[৮] বরগুনার জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ জানান, সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

[৯] ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বরগুনায় ২ হাজার ৩শ ৮৬ জন এতিমের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয় ২ কোটি ৮৬ লাখ ৩২ হাজার টাকা। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে যার পরিমান দ্বিগুণ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত