প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চাঁপাইনবাবগঞ্জে শিশু নিপীড়ক ও হত্যাকারী পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট : চাঁপাইনবাবগঞ্জে মুসলেমা খাতুন রিমা নামে ৭ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ ও হত্যাকারী পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন। যুগান্তর

সদর উপজেলার শাহজাহানপুর ইউনিয়নের হরিসপুরে একটি আম বাগানে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে তিনি নিহত হন বলে দাবি পুলিশের। এসময় ৩ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

সাত বছরের শিশু মুসলেমা খাতুন রিমা ধর্ষণ ও হত্যার সন্দেহভাজন ছিল তরিকুল ইসলাম ওরফে সাদ্দাম। বৃহস্পতিবার রাতে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত তরিকুল ইসলাম চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের গড়াইপাড়ার নোমান আলীর ছেলে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফজল-ই-খুদা পলাশ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি তরিকুল সদর উপজেলার আলাতুলি ইউনিয়নের বকচর সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালানো চেষ্টা করছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে তাকে আটক করা হয়। আটকের পর তিনি শিশু রিমাকে ধর্ষণ ও হত্যার কথা আমাদের কাছে স্বীকার করেন।

এঘটনায় আরও কয়েকজন জড়িত রয়েছেন বলে তিনি আমাদের জানিয়েছেন। অন্য সহযোগীদের ধরতে তরিকুলকে নিয়ে হরিসপুরের একটি আম বাগানে যায় পুলিশ।

সেখানে পৌঁছামাত্রই তার সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে গুলিবিদ্ধ হয় তরিকুল।

পরে রাত ৯টার দিকে তাকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন ও ৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

প্রসঙ্গত গত সোমবার নিখোঁজ হওয়ার পর মঙ্গলবার সকালে চাঁপাইবাবগঞ্জ সদর উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের মানিক হাজির টোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনে একটি বাঁশবাগান থেকে পুলিশ রিমার মরদেহ উদ্ধার করে।

ওই স্কুলের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী ছিল রিমা। এ ঘটনায় নিহত রিমার বাবা রুহুল আমিন বাদী হয়ে বুধবার তরিকুলসহ পাঁচ অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিকে আসামি করে নবাবগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর পলাতক তরিকুলের বাড়ি থেকে নিহত রিমার পরনের প্যান্ট উদ্ধার করে পুলিশ।

সর্বাধিক পঠিত