প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইতালির উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছেন প্রধানমন্ত্রী

মহসীন কবির: চার দিনের সফরে মঙ্গলবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ‘বিজি-১২০১’ ভিভিআইপি ফ্লাইটে হযরত শাহজালার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছাড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ দিন স্থানীয় সময় বিকেল সোয়া ৪টায় রোমের ফিয়ামিকিনো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে তার। সময় টিভি ও বাসস

বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন ইতালিয়ান সরকারের প্রতিনিধি ক্রিস্তিয়ানো কোত্তাফাভি এবং দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান শিকদার। ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কোন্তের আমন্ত্রণে এ সফর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

তার এ সফর ঘিরে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কোন্তের আমন্ত্রণে চার দিনের সরকারি সফরে রোমে এদিন সন্ধ্যায় প্রবাসী বাংলাদেশিদের এক গণসংবর্ধনায় প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ দেয়ার কথা রয়েছে।

এ সফরে ইতালির প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক ছাড়াও রোমে বাংলাদেশের স্থায়ী দূতাবাস ভবনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন শেখ হাসিনা। ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জানান, প্রধানমন্ত্রীর এ সফর দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় করবে। এদিকে প্রধানমন্ত্রীর সফরকে কেন্দ্র করে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা রোমে আসতে শুরু করেছেন। ব্যস্ত রয়েছেন স্থানীয় নেতাকর্মীরাও।

প্রধানমন্ত্রীর সফর সূচি:

মিনিস্টার প্লেনিপোটেনসিয়ারি অব ইতালিয়ান ফরেন মিনিস্ট্রি এবং ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দরে অভ্যর্থনা জানাবেন। বিমানবন্দরে আনুষ্ঠানিকতা শেষে মোটর শোভাযাত্রা সহকারে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে পার্কো দেই প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পায় নিয়ে যাওয়া হবে। ইতালির রাজধানীতে সফরকালে তিনি সেখানেই অবস্থান করবেন।

শেখ হাসিনা একই দিন সন্ধ্যায় পার্কো দেই প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পায় তার সম্মানে আয়োজিত একটি সংবর্ধনায় যোগ দেবেন। ৫ ফেব্রুয়ারি বুধবার সকালে তিনি রোমের ভায়া ডেল এন্টারটাইড এলাকায় বাংলাদেশ দূতাবাসের চ্যান্সরি ভবন উদ্বোধন করবেন। বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুজেপ্পে কোন্তের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করবেন এবং ইতালির প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন পালাজো চিগিতে এক আনুষ্ঠানিক মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন। দুই শীর্ষ নেতা সম্মেলনে দ্বিপক্ষীয় সার্বিক ইস্যুগুলোর পাশাপাশি আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। পরে ইতালীয় ব্যাবসায়িক সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিগণ পার্কো দেই প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পায় তাঁর হোটেলের সভাকক্ষে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

প্রধানমন্ত্রী পরে পার্কো দেই প্রিন্সিপি গ্র্যান্ড হোটেল অ্যান্ড স্পায় ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আয়োজিত নৈশভোজে অংশ নেবেন। আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি সকালে শেখ হাসিনা পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। পরে প্রধানমন্ত্রী দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে ট্রেনে করে রোম থেকে ইতালির মিলান শহরের উদ্দেশে যাত্রা করবেন এবং স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় সেখানে পৌঁছবেন। মিলান সফরের সময় তিনি এক্সেলসিয়ার গালিয়া হোটেলে অবস্থান করবেন।

৭ ফেব্রুয়ারি স্থানীয় সময় দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে আমিরাত এয়ারলাইনসের একটি বিমানে মিলান মালপেন্সা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দেশের উদ্দেশে রওনা হবেন প্রধানমন্ত্রী। ৮ ফেব্রুয়ারি দুবাই হয়ে বাংলাদেশ সময় সকাল ৮টা ১০ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছবেন শেখ হাসিনা।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত