প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজধানীর বাজারে চালের দাম কেজিপ্রতি ৫ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে

মাজহারুল ইসলাম : যদিও এই সময়ে চালের দাম বাড়ার কোনও কারণ নেই বলে জানিয়েছেন চালের আড়তদাররা। কিন্তু খুচরা ব্যবসায়ীরা জানান, সরবরাহ কম থাকায় চালের দাম বাড়ছে। আর ক্রেতারা বলেছেন, কর্তৃপক্ষের নজরদারির অভাবেই এখন চালের দাম বাড়ছে। তবে এটিকে কৃষকের জন্য ভালো সংবাদ বলে মনে করছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, চালের দাম বাড়ায় লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা। এতে কৃষকরা উৎসাহিত হন।

রাজধানীর বিভিন্ন চালের বাজার ঘুরে দেখা যায়, মোটা চালের তুলনায় চিকন চালের দাম বেড়েছে বেশি। বর্তমানে বাজারে প্রতি কেজি মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিলো ৩০ থেকে ৩৫ টাকা। আর চিকন চাল বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। গত সপ্তাহে ছিলো ৪৫ থেকে ৫০ টাকা।

হঠাৎ চালের দাম বাড়ার কারণ হিসেবে কারওয়ান বাজারের একজন ব্যবসায়ী জানান, ঘন কুয়াশা ও তীব্র শীতের কারণে দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে গত সপ্তাহে রাজধানীতে চালের সব ট্রাক আসতে পারেনি। এতে সরবরাহে বিঘ্ন ঘটেছে, তাই বেড়েছে চালের দাম। অপর একজন চাল ব্যবসায়ী জানান, এক সপ্তাহ আগে উত্তরাঞ্চল থেকে রাজধানীতে আসা ট্রাকের ভাড়া ছিলো ১৮ থেকে ২০ হাজার টাকা। যা বর্তমানে ২২ থেকে ২৬ হাজার টাকা। ঘন কুয়াশা ও শীতের কারণে ট্রাকচালকরা এখন বেশি ভাড়া চাইছেন। ব্যবসা চালিয়ে রাখতে বেশি ভাড়া দিয়েই চাল আনতে হচ্ছে।

আড়তমালিকরা বলেছন, এই সময় চালের দাম বাড়ারও কোনও কারণ নেই। আড়তে চালের দাম বাড়েনি। বাজারে নতুন চাল উঠছে। খুচরা বাজারে চালের দাম বাড়ার অন্য কোনও কারণে থাকতে পারে। সরবরাহে কোনও সমস্যা নেই।

মিলমালিকরা বলছেন, নওগাঁ, নাটোর, জয়পুরহাট, দিনাজপুরের চালের মোকামে চালের দাম বাড়েনি। তারপরও যদি রাজধানীর খুচরা বাজারে চালের দাম বেড়ে যায়, তাহলে এর দায় আমাদের না। এই মুহূর্তে মোটা বা চিকন চালের দাম বাড়ার কোনও কারণই নেই।

এ প্রসঙ্গে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শরীফা খান গণমাধ্যমকে বলেন, সারাবছরই ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) নিয়মিত বাজার মনিটরিং করে। কারণ ছাড়া কেউ বেশি মুনাফা করলে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত