প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পটিয়ায় শ্রীমাই খালের বালি সিন্ডিকেটের মচ্ছফ

গিয়াস উদ্দিন, পটিয়া প্রতিনিধি : চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলা শ্রীমাই খাল ও ফসলি জমি থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে একটি চক্র। অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের কারণে খালের বেড়িবাঁধ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় পড়েছে। বালি উত্তোলনের ঘটনায় প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে খালের বেড়িবাঁধ ভেঙে পাহাড়ি ঢলে উপজেলার হাইদগাও, কচুয়াই, ভাটিখাইন, ছনহরা ইউনিয়নের হাজার হাজার পরিবারের গৃহহীন, কোটি টাকার ফসল নষ্ট হয়ে হয়ে পড়ে।

অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের সঙ্গে উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ, একটি প্রভাবশালী রাজনৈতিক চক্র জড়িত রয়েছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

উপজেলার শ্রীমাই খাল থেকে অবৈধভাবে প্রতিদিন দিনে রাতে প্রায় ৫০০ থেকে ৭০০ ট্রাক বালি উত্তোলন করা হচ্ছে। অবৈধভাবে বালি উত্তোলনে ঘটনায় চারপাশে পরিবেশ মারাত্বক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে বলে স্থানীয় কৃষকেরা জানায়।

কাগজে কলমে ইজারাদার আরমিন অ্যান্ড ব্রাদার্স হলেও পটিয়ার স্থানীয় রাজনৈতিক প্রভাবশালী চক্রকে দিয়ে ইজারার শর্ত ভঙ্গ করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে তারা। শ্রীমাই খালের দুটি পয়েন্ট ২১ লাখ টাকা দিয়ে ইজারা নিলেও ৩০ লাখ টাকা দিয়ে স্থানীয় কিছু দলীয় লোকজন কিনে নিয়ে কোটি কোটি টাকার বালুর ব্যবসা করে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে চট্টগ্রাম কক্সবাজার রেল লাইনের শ্রীমাই খালের উপর যে সেতু আছে সেটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে। ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার কারণে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

অভিযোগ উঠেছে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের সঙ্গে জড়িত রয়েছে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবদলের সিনিয়রসহ সভাপতি শাহজাহান চৌধুরী প্রকাশ বালু শাহজাহান ও তার ভাই পটিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলমগীর আলম। তারা দুই ভাই মিলে অবৈধভাবে বালি তুলে লাখ লাখ টাকার ব্যবসা করছেন। বিএনপি ক্ষমতায় আসলে শাহজাহান আর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে আলমগীর আলম বালু উত্তোলনের ব্যবসা পরিচলনা করেন।

শ্রীমাই খাল থেকে বালি উত্তোলন না করার জন্য স্থানীয় এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ শামশুল হক চৌধুরী প্রশাসনকে নির্দেশ দিলেও এই নির্দেশ বাস্তবায়ন হচ্ছে না। একটি চক্র অবৈধভাবে বালু তোলে বিক্রি করে কোটি টাকা ভাগিয়ে নিচ্ছে বলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের বড় একটি অংশের নেতা কর্মীদের অভিযোগ। স্কেভেটরে শুধু মাত্র খালের উপর এবং নিদিষ্ঠ পয়েন্ট থেকে বালু তোলার নির্দেশ থাকলেও এলাকার শতশত মানুষের ফসলি জমি নষ্ট করে জোরপূবর্ক অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। সম্পাদনা: জেরিন

সর্বাধিক পঠিত