প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জেনোবোট নামে খুব ছোট জীবন্ত রোবট তৈরিতে সফল হয়েছেন বিজ্ঞানীরা

মাজহারুল ইসলাম : সুপার কম্পিউটারে ব্যবহৃত ‘বিবর্তনমূলক অ্যালগরিদম’ তাদের এমন সফলতা এনে দিয়েছে। বিজ্ঞান সাময়িকী প্রসিডিংস অব দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অব সায়েন্স সম্প্রতি এ সংক্রান্ত একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছে। তা থেকেই জানা যায় এসব তথ্য।
বিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রাণীর শরীর থেকে সংগ্রহ করা কোষ দিয়ে বিভিন্ন কাঠামো তৈরিতে বিবর্তনমূলক অ্যালগরিদম প্রয়োগ করা হয়। আর তাতেই পাওয়া যায় এমন সফলতা। কোষগুলো রোবটের মতোই স্বয়ংক্রিয় আচরণ করে। অর্থাৎ নিজের মতো চলতে পারে। শুধু তাই নয়, এসব জেনোবোট নির্দিষ্ট বস্তু চিনতে পারে। এরা ওই বস্তুর কাছে গিয়ে তাকে নিজের মধ্যে টেনে নিতে পারে। নিজের শরীরে বহন করতে পারে নির্দিষ্ট ওজনের বোঝা।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, জেনোফাস লেভিস নামে আফ্রিকার একটি ব্যাঙের ভ্রূণ থেকে হৃৎপিণ্ডের কোষ সংগ্রহ করা হয়। গবেষণাগারে প্রতিবার ৫’শ থেকে ১ হাজার কোষ নিয়ে বিবর্তনমূলক অ্যালগরিদমের মাধ্যমে ত্রিমাত্রিক (থ্রিডি) কাঠামো তৈরি করা হয়। এরপর ভার্চুয়াল পরিবেশে এর কার্যকারিতা পরীক্ষা করাা হয়। সবচেয়ে কার্যকর কাঠামো বেছে নিয়ে সেটিকেই কাজে লাগানো হয় একই ধরণের কাঠামো তৈরি করতে। এরপর এদের জুড়ে বানানো হয় কাঙ্খিত জেনোবোট। এভাবে প্রথমবারের মতো সবচেয়ে সফল যেসব জেনোবোট তৈরি করা সম্ভব হয়েছে, এদের মধ্যে ১টির গায়ে ২টি খাটো ও মোটা পা রয়েছে। ফলে এটি বুকে হেঁটে সামনে এগোতে পারে।
অপর ১টি জেনোবোটে দেখা যায়, পিঠের মাঝে একটি গর্ত। যা দিয়ে এটি নির্দিষ্ট পরিমাণ বোঝা বহন করতে পারে। শুধু তাই নয়, জেনোবোটগুলো নিজেদের শরীরের ক্ষয়ক্ষতি নিজেরাই সারিয়ে তুলতে পারে।

এ গবেষণার সঙ্গে যুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের টাফট বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালেন ডিসকভারি সেন্টারের পরিচালক মিশেল লেভিন বলেন, মানব সভ্যতার ইতিহাসে এবারই প্রথম একটি জীবন্ত যন্ত্র তৈরি সম্ভব হলো। বিজ্ঞানীরা আশা করছেন, ভবিষ্যতে জেনোবেটের মাধ্যমে রোগীর শরীরের বিভিন্ন অংশে ওষুধ পরিবহন সম্ভব হবে। কাজে লাগানো যাবে, সমুদ্র পরিচ্ছন্ন করতেও। সূত্র : গার্ডিয়ান

সর্বাধিক পঠিত