প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তামাবিল ইমিগ্রেশনে ভারত ভ্রমণে পর্যটকের ভাটা

শাহ আলম, গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি : সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার তামাবিল ইমিগ্রেশনে ভারত ভ্রমণে পর্যটকের ভাটা পরেছে। প্রতিবেশী দেশ হওয়ায় বাংলাদেশীদের প্রথম পছন্দ ভারত। এছাড়াও কম খরচে ঘুরে আসা যায় ভারত থেকে।

সম্প্রতি ভারত সরকার তামাবিল দিয়ে ভারতে যাতায়াতে পর্যটকদের দায়িত্ব নেবেনা এমন বক্তব্য গণমাধ্যমে প্রচার হয়। মাস দেড়েক আগেও জমজমাট ছিলো তামাবিল ইমিগ্রেশন।

জানা যায়, নাগরিকত্ব সংশোধন আইন (এনআরসি) নিয়ে প্রায় মাসখানেকেরও বেশি সময় ধরে উত্তাল হয়ে উঠেছে ভারতের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য। এরই প্রেক্ষিতে গত বছরের শেষের দিকে আইনটির বিরোধিতা করে ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের রাজধানী গৌহাটিসহ পুরো রাজ্য জুড়ে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভে রাস্তায় নামে হাজার হাজার মানুষ।

এ বিক্ষোভ সামাল দিতে আসামের পর বাংলাদেশের সীমান্তঘেষা রাজ্য মেঘালয়ে ১৩ ডিসেম্বর থেকে অনির্দিষ্ট কালের জন্য কারফিউ জারি করে রাজ্যটির প্রশাসন। ফলে নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনা করে ওইদিন সকাল থেকে ভারতীয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ডাউকি-তামাবিল বর্ডার দিয়ে বাংলাদেশ থেকে পর্যটক ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

একদিন বন্ধ থাকার পর ১৪ ডিসেম্বর দুপুর থেকে পর্যটকদের ভ্রমণের জন্য পূণরায় ডাউকি বর্ডার খুলে দেয় ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

বর্ডার খুলে দিলেও ভারতের অভ্যন্তরীণ ঝামেলার কারণে বাংলাদেশ থেকে ভারতে ভ্রমণে যাওয়া পর্যটকদের নিরাপত্তার দায়িত্ব নেবে না বলে তাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে তামাবিল ইমিগ্রেশন পুলিশকে জানানো হয়। এরপর থেকে তামাবিল ইমিগেগ্রশন দিয়ে ভারতে পর্যটক ভ্রমণ হ্রাস পেতে থাকে।

পরবর্তীতে পরিস্থিতি শিথিল হলেও ১৪ ডিসেম্বরের পর থেকে গত একমাসে তামাবিল ইমিগ্রেশন দিয়ে পর্যটক যাতায়ত করেছে সব মিলিয়ে প্রায় ৪ হাজারের মতো। এতে করে যে সংখ্যক পর্যটক ভারতে গমনাগমন করেছে তা গেল কয়েক মাসের পরিসংখ্যানের চেয়ে অর্ধেকেরও কম।

তামাবিল ইমিগ্রেশন পুলিশের দেওয়া তথ্য সূত্রে জানা যায়, গত বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত সাড়ে পাঁচ মাসে প্রায় ৬০ হাজারের অধিক পর্যটক এই বর্ডার দিয়ে গমনাগমন করেছেন।

এতে করে প্রত্যেক মাসে তামাবিল ইমিগ্রেশন দিয়ে যাতায়াত করেছেন গড়ে প্রায় ১২ হাজার পর্যটক। যেখান থেকে শুধু যাত্রী ভ্রমণ কর বাবাদ সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে প্রায় দেড় কোটি টাকা।

কিন্তু ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধন আইন নিয়ে ঝামেলার কারণে গত ১৪ ডিসেম্বরের পর থেকে চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত এই বর্ডার দিয়ে পর্যটক গমনাগমন করেছে প্রায় ৪ হাজারের মতো। যা অতীতের রেকর্ডেও তুলনায় অর্ধেকেরও নিচে নেমে এসেছে।

এ ব্যাপারে গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল আহাদ জানান, গেল কয়েক মাসের তুলনায় মাস খানেক সময় ধরে তামাবিল দিয়ে পর্যটকদের ভারতে ভ্রমণ খানিকটা কমেছে। তবে ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধন আইন নিয়ে অস্থিরতা নাকি এর অন্য কোন কারণ রয়েছে এ বিষয়টি তার জানা নেই বলে তিনি জানিয়েছেন। সম্পাদনা: জেরিন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত