প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভুট্টা বিভ্রাট, চরকার সমাধান

আশফাক হোসেইন : ভাই আগেই একটা প্রশ্ন করি, বলেনত এক ভুট্টা গাছে দুটো বা তিনটা করে মোচা হয় আর আরেকটা গাছে কেবল একটাই যেটার সাইজ নিন্মে ৮ ইঞ্চি। কোনটায় বেশী পাবেন?

অবশ্য এখানে উত্তর দেয়ার আগে যেটা বিবেচ্য, তা হচ্ছে চাষির কি দরকার। যে চাষি ভুট্টার জন্য চাষ করেছেন, তার কাছে তিনটা ছোট মোচা থেকে বড় একটা মোচা দরকার বেশী। কারন তাহলে ভাল সাইজের ভুট্টাদানা বেশী পরিমানে পাওয়া যাবে। কিন্তু যিনি সাইলেজের জন্য ভূট্টা চাষ করেছেন, তার এগুলো দেখার সময়ও নাই। আবার যিনি দুটোর জন্যেই করেছেন, তার কিন্তু হিসাব নিকাশ বেশী দরকার।

এজন্যেই, আমি বলি যারা বুদ্ধিমান, তারা যেনো দুটো মুকুলের ভুট্টাজাত বাছাই করেন। না একটা, আর না তিনটা। কারন তিনটার মোচা অনেক ছোট হয়, হয়ত লম্বা কিন্তু চিকন অথবা খাটো কিন্তু সামান্য মোটা। তারচে ৮ ইঞ্চি বা অন্তত ৭ ইঞ্চির মোচা ভাল। কিন্তু দুটো হলে, সুবিধা হচ্ছে নিচেরটা সাধারণত দুই তিন দিন আগে ম্যাচিউর হবে। অবশ্য জাতবাছাই জরুরী। কিছু ডিটারমাইন্ড জাতে একসাথে সব হয়। যেগুলো দুই-তিন দিনের গ্যাপ থাকে, সেগুলো দরকার। অথবা একসাথে হলেও কৌশলী হলে সমস্যা হয়না।

আবার, গাছ এর ধরন আছে। কিছু গাছ হয় ৫ ফুট কিন্তু জায়গা নেয় দেড়ফুট এরিয়া। আবার আমেরিকান বুরপি কম্পানির নন-জিএমও একটা হৈব্রিড ভারাইটি আছে, যার উচ্চতা ৭ ফুট কিন্তু এরিয়া নেয় মাত্র একফুট। এর মোচার পাতাও নরম। তাহলে কি বুঝলাম? বুঝলাম যে এই জাত অধিক ডেনসিটিতে লাগান যাবে। ফলাফলঃ শুদু লাভ আর লাভ।

অতএব, দেশ ছোট, মানুষ বেশী। ফলে আমাদের চাষের সময় মানুষের খাবার নিয়ে আগে ভাবা কর্তব্য, এর বাইপ্রডাক্ট বা বাড়তিটুকু গবাদিপশুর জন্য। এজন্য, আমার এমন জাত পছন্দ যাতে দুটো মোচা হবে। একটা মানুষের, আরেকটা সাইলেজের। সুইটকর্ন খাওয়ার অভ্যাস আমাদের নেই, সেটা থাকলে সবজি হিসাবে নিচের বড়টা বাজারে সবজি হিসাবে পাঠান যেত। আমাদের এমন একটা স্টেজ দরকার, যেখানে একটা ভুট্টা পুরা না শুকাক, অন্তত আর-৫ স্টেজে থাকে। এসময় পুরো গাছ কেটে এনে কেবলমাত্র নিচেরটা কেটে রোদে শুকায় নিতে হবে পর্দা সহ (পাতামোড়ান অবস্থায়)। আর অন্য ভুট্টা সহ গাছ কুচি করে ফেলতে হবে। সাধারণত উপরের ভুট্টাটা নিচেরটার থেকে প্রাই অর্ধেক সাইজের হয়।

অবশ্য অনেকে ভুট্টা আগে তুলে পরে গাছ কাটেন। আমার কাছে একসাথে গাছকাটা বেশী সহজ মনে হয়। যারযার বেক্তিগত সুবিধা। এইজে এত আগে একটা ভুট্টা গাছ থেকে ছাড়িয়ে ফেললেন, এতে এটা ভাবার দরকার নাই যে এর গ্রোথ হয়নাই। আসলে ভুট্টার ভিতরে এখন কেবলমাত্র পানি আছে। এগুলো দ্রুত স্টার্চে রুপান্তর হতে থাকবে গাছে না থাকলেও। এখন গাছে থাকলে কেবল বীজ হিসাবে এর শেলফলাইফ বাড়ানোর কাজ চলবে। আপনি যদি বীজ করতে চান তাহলে প্রয়োজনীয় গাছ শুকান পর্যন্ত রেখে দিতে হবে। খাওয়ার জন্য এখন রোদে শুকালেও চলবে। তাছাড়া আমাদের দেশে ভুট্টা খাওয়ার চাইতে হাসমুরগীকে খাওয়ান হয় বেশী।

আরেকটা দিক হচ্ছে, এখন মানুষ ভুট্টা ফার্মেন্টেশন করা প্রায় আয়ত্ব করে ফেলেছে। ফলে নরম ভুট্টার প্রয়োজনীয়তাও কমে আসছে। কিন্তু গাছ সবুজ রেখে কাটতে চাইলে আর-৫ স্টেজই ভাল। আমার মতে, নিচের দু-তিনটা পাতা শুকালেই ঘ্যাচাং। কারণ শুকনা পাতারও দরকার আছে। সম্পাদনা: জেরিন মাশফিক

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত