প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আ’লীগের দু’গ্রুপের মারামারিতে বিয়ে করা হলো না প্রবাসীর

বাংলাদেশ জার্নাল : ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মো. সিরাজ (৩৫) নামের এক প্রবাসী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আরো তিনজন। রোববার সন্ধ্যার দিকে উপজেলার ঘোপাল এলাকার সমিতি বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সিরাজুল ইসলাম উপজেলার ঘোপাল ইউনিয়নের নিজকঞ্জুরা গ্রামের আবদুল কাদেরের ছেলে। তিনি কিছুদিন আগে দেশে এসেছিলেন বিয়ে করার জন্য।

নিহত সিরাজুল ইসলামের বাবা আবদুল কাদের জানান, কিছুদিন আগে তার ছেলে প্রবাস থেকে বিয়ে করার জন্য দেশে এসেছেন। তিনি হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

স্থানীয়রা জানায়, বালু মহাল ও এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার ও ঘোপাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল হক মানিকের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। বিরোধের জের ধরে রোববার এই অর্তকিত হামলার ঘটনা ঘটে।

ঘটনার সময় আজিজুল হক মানিকের নেতৃত্বে ফারুক, আলম, জিহাদ, বাদশা সমিতি বাজারে জুলফিকার গ্রুপের সদস্যদের উপর হামলা চালায়। এ সময় মো. সিরাজ গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

জুলফিকুল সিদ্দিকী অভিযোগ করেন, মানিক চেয়ারম্যানের লোকজন এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। হামলাকারীরা সবাই মাদকসেবী।

নিজকনজুরা গ্রামের শহিদ জানান, চার সিএনজি যোগে বাদশা ও শামিমের নেতৃত্বে একদল যুবক কুলিং কর্নারে ঢুকে জুলফিকুলের সমর্থিত পারভেজ ও জিহানের ওপর হামলা চালায়। এসময় পারভেজকে রক্ষা করতে গিয়ে দুর্বৃত্তের গুলিতে ঘটনাস্থলে সিরাজুল ইসলাম নিহত হন।

তবে মানিক চেয়ারম্যান এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাই জুলফিকুলের লোক। মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে সিরাজ নিহত হওয়ার খবর শুনে জুলফিকার গ্রুপের সদস্যরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক কিছুক্ষণের জন্য অবরোধ করে। পরে হাইওয়ে পুলিশ গিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে।

স্থানীয়রা আরো জানায়, নিহত মো. সিরাজ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার গ্রুপের সদস্য। এ ঘটনায় আহত জোবায়ের হোসেনকে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে আনা হলে আশংকাজনক অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত শেখ সাদী জিহানসহ বাকি দুই জনকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

ছাগলনাইয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেসবাহ উদ্দিন একজন নিহত হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছ। এখনো জানা যায়নি কিভাবে হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। তদন্তের পর জানা যাবে।

ফেনী হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদ উদ্দিন জানান, বিক্ষুব্ধরা ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কের ছাগলানইয়া অংশের একপাশ কিছুক্ষণ বন্ধ করে রাখে। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে যানচলাচল স্বাভাবিক হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত