প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্বের প্রথম ‘ফ্লাই অ্যান্ড ড্রাইভ’ গাড়ি।

মুসবা তিন্নি : উড়ন্ত গাড়ি’র গল্প বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে অনেকেই পড়েছেন। এটি ইতোমধ্যে বাস্তবে পরিণত হয়েছে। মঙ্গলবার (০৩ ডিসেম্বর) রাতে বিশ্বের প্রথম 'ফ্লাই অ্যান্ড ড্রাইভ' গাড়িটি প্রদর্শিত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের মায়ামিতে।এনডিটিভি বাংলা

ওড়ার পাশাপাশি গাড়িটি অন্য গাড়ির মতো চলতেও সক্ষম। এই হিসেবে এটি প্রথম গাড়ি যা একই সঙ্গে চলতে ও উড়তে পারে। এটির নাম ‘পাইওনিয়ার পারসোনাল এয়ার ল্যান্ডিং ভেহিকেল’ বা পিএএল-ভি। মায়ামি আর্ট উইক ২০১৯ এর ‘মায়ামি ২০২০ অ্যান্ড বেয়ন্ড’ ইভেন্টে গাড়িটি প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

পিএএলভি’র বডি তৈরি করা হয়েছে কার্বন ফাইবার, টাইটেনিয়াম ও অ্যালুমিনিয়াম দিয়ে। এটির ওপরের অংশ ও পেছনের প্রপেলার প্রয়োজনে সংকুচিত করে রাখা যায়। একটি বাটন চাপলেই বাদুরের মতো ডানা মেলে গাড়িটি।

এটির ওজন ১৫শ’ পাউন্ড। উড্ডয়নের জন্য এর প্রয়োজন পাঁচশ’ ৪০ ফুট দীর্ঘ রানওয়ে এবং অবতরণের জন্য প্রয়োজন ১০০ ফুট দীর্ঘ রানওয়ে। এটি ভূমি থেকে ১২ হাজার পাঁচশ’ ফুট ওপরে উঠতে সক্ষম। এটি অন্য গাড়ির মতোই জ্বালানিতে চলে। গাড়িটি সড়কে ঘণ্টা প্রতি ১০০ মাইল বেগে চলতে পারে এবং উড়তে পারে ঘণ্টা প্রতি ২০০ মাইল বেগে। এটি দু’জন আরোহী বহন করতে পারে। এতে চার-সিলিন্ডার বিশিষ্ট একটি ইঞ্জিন রয়েছে।

ডাচদের বানানো এ উড়ন্ত গাড়ি ইতোমধ্যে বাজারজাত করার জন্য তৈরি করা হচ্ছে। ২০২১ সালে এটি বাজারে আসার কথা রয়েছে। এটি কিনতে হলে আপনাকে খরচ করতে হবে পাঁচ লাখ ৯৯ হাজার মার্কিন ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় পাঁচ কোটি আট লাখ ১৯ হাজার টাকা। ইতোমধ্যেই অর্ডার করা হয়েছে ৭০টি গাড়ি। গাড়িটি কিনতে চাইলে আপনার ড্রাইভার্স ও পাইলট দু’টি লাইসেন্সই থাকতে হবে।
এর আগে পিএএল-ভি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) রবার্ট ডিঙ্গেমান্সে এক বিবৃতিতে বলেন, প্রযুক্তিগত সব বাধা অতিক্রম করে একটি উড়ন্ত গাড়ি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে আমাদের টিম। গাড়িটিতে নিয়মানুযায়ী নিরাপত্তার সব ব্যবস্থা রয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা চলচ্চিত্রে অসংখ্যবার উড়ন্ত গাড়ি দেখেছি। পরের বছর থেকেই তা বাস্তবে পরিণত হতে যাচ্ছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত