প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভিসি হিসেবে থাকার সকল নৈতিকতা হারিয়েছেন ফারজানা ইসলাম

কামরুল হাসান মামুন : জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির বিরুদ্ধে আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে আমাদের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘অভিযোগ আনলেই তো হবে না? অভিযোগ প্রমাণ করতে হবে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত ব্যক্তি যেই শাস্তি পেতো অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারলে অভিযোগকারীকেও ঠিক সেই পরিমাণ শাস্তি পেতে হবে’। আচ্ছা অভিযোগ প্রমাণ হলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির কি শাস্তি হতো? বড়জোর ভিসি পদ থেকে বরখাস্ত করতো। তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে অভিযোগ প্রমাণিত হলে নিশ্চই শিক্ষকতা চাকরি হারাবেন না বা জেল জরিমানা হবে না। এখন আন্দলোনকারীরা অর্থাৎ অভিযোগকারীরা অভিযোগ প্রমাণের ব্যর্থ হলে তাদের কি শাস্তি দেওয়া হবে? আমার মাথায়তো সেটা আসতেছে না।

অভিযোগকারীদেতো ভিসি পদ নাই যে একই শাস্তি দেওয়া যাবে। আমরা গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি নাসির সাহেবের বিরুদ্ধে গুরুতর সব অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও তার শাস্তি কি হয়েছে? ভিসি পদ থেকে অপসারণ এবং এরপর স্বপদে প্রত্যাবর্তন। ভিসি নাসিরের বিরুদ্ধে এতো এতো গুরুতর অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও তদন্ত সাপেক্ষে তাকে কেন বিচারের সম্মুখীন করা হলো না? এটা কি সুশাসনের ব্যত্যয় না? আজ যদি ভিসি নাসিরের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র দুর্নীতির ও অন্যান্য অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলা হতো এবং সাজা হতো, তাহলে বুঝতাম জাহাঙ্গীরনগরের ক্ষেত্রে অভিযোগকারীরাও মামলা ও শাস্তির আওতায় আসবেন।

তার মানে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রেও বড়জোর যেটা ঘটবে তাকে বরখাস্ত করা যা অতীতে অনেকবার হয়েছে। কিন্তু অতীতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব ভিসিদের আন্দোলনের মাধ্যমে সরানো হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে বর্তমান ভিসির বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের মত এইরকম গুরুতর নৈতিকতার স্খলনের অভিযোগ ছিল না। বর্তমান জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি যা করলেন তা নজিরবিহীন এবং নিজের চেয়ার ঠিক রাখার জন্য সন্তানতুল্য ছাত্রদের ব্যবহার করলেন। এই ছেলেমেয়েরা ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছে পড়াশোনা করার জন্য। ওই ভিসির লাঠিয়াল হওয়ার জন্য নয়। যেই ভিসি নিজ দলের ছাত্র সংগঠনকে দিয়ে তারই বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেকদল ছাত্র ও শিক্ষকের উপর হামলা করায় এবং অনেককে আহত করায় তারপর আবার হামলাকারীদের অভিনন্দন দেয় তিনি কি করে আর ভিসি থাকতে পারেন। ভিসি হিসেবে থাকার সকল নৈতিকতা তিনি হারিয়ে ফেলেছেন। এখন টাকা দেওয়া বা দুর্নীতি করার অভিযোগ প্রমাণের প্রয়োজন কি আর আছে?

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত