প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দারিদ্র্য বিমোচনে সবচেয়ে দ্রুত সফলতা অর্জন বাংলাদেশ,ভারত ও কম্বোডিয়ার

নূর মাজিদ : জাতিসংঘ প্রতিবেদনে ২শ কোটি জনসংখ্যা রয়েছে এমন ১০টি দেশকে চিহ্নিত করে দারিদ্র বিমোচনের পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়। দেশগুলো দারিদ্র বিমোচনে অসাধারণ সাফল্য অর্জন করে জাতিসংঘের ১ নম্বর টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বা এসডিজি পূরণের কাছাকাছি অবস্থান করছে। এই ১০টি দেশের মাঝে আবার সবচেয়ে দ্রুত দারিদ্র্য কমেছে বাংলাদেশ, কম্বোডিয়া এবং ভারতে। সূত্র : ইউএন নিউজ।

সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে সারা বিশ্বের প্রায় ১৩০ কোটি মানুষ বহুমাত্রিক দরিদ্র। বহুমাত্রিক দারিদ্র্যতার মাধ্যমে শুধু আর্থিক স্বচ্ছলতা নয়, বরং স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হওয়া, নিম্নমানের পেশা বেঁছে নিতে বাধ্য হওয়া, সহিংসতার ঝুঁকি ইত্যাদি ইত্যাদি বিষয়কেও বিবেচনায় আনা হয়। বিশ্বের প্রায় ১০১টি দেশের ওপর গবেষণা করে গত বৃহ¯পতিবার প্রকাশিত বহুমাত্রিক দারিদ্র্য সূচক, শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এই দেশগুলোর মাঝে ৩১টি স্বল্পআয় এবং বাকি ৬৮টি মধ্যআয়ের দেশ। প্রতিবেদনটি সম্পদ বৈষম্যের দিকগুলোও তুলে ধরে।

প্রতিবেদনটি বলছে, যেসব দেশের ওপর ভিত্তি করে এই গবেষণা পরিচালনা করা হয়েছে, সেখানে বিপুল বৈষম্য রয়েছে। বিশেষ করে, দক্ষিণ এশিয়া এবং সাব-সাহারা আফ্রিকা অঞ্চলে ৮৪ দশমিক ৫ শতাংশ বা বিশ্বের অধিকাংশ অতি-দরিদ্র মানুষ বসবাস করেন। এই দুটি অঞ্চলে সমাজের দরিদ্র শ্রেণীর মানুষ সকল দিক থেকেই বঞ্চিত হচ্ছেন। এই অবস্থা নিরসনে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে জোরালো এবং স্বচ্ছ দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচী নেয়ার, সুপারিশ করেছে।

দক্ষিণ এশিয়া এবং সাব-সাহারা আফ্রিকা অঞ্চলে সম্পদ বৈষম্য বিশাল একটি সমস্যা বলে উলে¬খ করেছে জাতিসংঘ প্রতিবেদন। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মাঝে সবচেয়ে কম দারিদ্র্য হার মালদ্বীপের, যা দশমিক ৮ শতাংশ। শতকরা ৫৫ দশমিক ৯ শতাংশ নিয়ে সবচাইতে বেশি বৈষম্য রয়েছে যুদ্ধবিদ্ধস্ত আফগানিস্তানে। সাব সাহারা অঞ্চলের দক্ষিণ আফ্রিকায় দারিদ্র্যের হার সবচেয়ে কম বা ৬ দশমিক ৩ শতাংশ। সবচেয়ে বেশি রয়েছে সদ্য স্বাধীন দক্ষিণ সুদানে, যার পরিমাণ ৯১ দশমিক ৯ শতাংশ। উল্লেখ্য, ইউএনডিপি আফ্রিকা মহাদেশের মোট ৫৪টি দেশের মাঝে ৪৬টি দেশকে সাব-সাহারা অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত করেছে। আলেজেরিয়া, মরক্কো, মিশর, জিবুতি, লিবিয়া, উত্তর ও দক্ষিণ সুদান, সোমালিয়া এবং তিউনিশিয়াকে সাহারা মরূভূমি অঞ্চল হিসেবে পৃথক শ্রেণীতে ফেলেছে জাতিসংঘ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত