প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঢাকায় দুধ ও দই সরবরাহকারীদের তালিকা চান হাইকোর্ট

মহসীন কবির ও এস এম নূর মোহাম্মদ : ঢাকায় দুধ ও দই সরবরাহকারী লাইসেন্স বিহীন ও লাইসেন্সধারী কোম্পানির তালিকা দুই সপ্তাহের মধ্যে দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। বিএসটিআইকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে। রোববার বিচারপতি মো:নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আগামী ১৫ জুলাই এই মামলার পরবর্তী শুনানি হবে।

শুনানিতে আদালত প্রথমে বিএসটিআইয়ের আইনজীবী সরকার এম আর হাসান ও কর্মকর্তা নুরুল ইসলামের বক্তব্য শোনেন। তারা বলেন,পাস্তুরিত দুধ ও দই বাজারজাত করণের জন্য ১৮ টি প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। এই ১৮ টি দেখভাল করার দায়িত্ব বিএসটিআইয়ের। এর বাইরে কারা দুধ ও দই বাজারজাত করছে সেটা দেখার দায়িত্ব বিএসটিআইয়ের নয়।

আদালত বলেন, লাইসেন্স গুলো দেখার দায়িত্ব আপনাদের হলে লাইসেন্সবিহীন গুলোও দেখার দায়িত্ব আপনাদের মধ্যে পরে। কিন্তু আপনার বলছেন, দেখার দায়িত্ব আপনাদের না। আপনাদের এই বক্তব্য এফিডেভিট আকারে আদালতে দাখিল করুন।

বিএসটিআইয়ের আইনজীবী আরো বলেন, ঢাকায় অভিজাত দোকানগুলোতে এই ১৮ টি কোম্পানীর দুধ ও দই ছাড়া লাইসেন্স বিহীন কোম্পানীর দুধ ও দই বিক্রি হয় না। তখন আদালত ড. শাহলীনার দাখিল করা প্রতিবেদন দেখিয়ে বলেন, গুলশানের অভিজাত দোকান গুলোতে লাইসেন্স বিহীন কোম্পানীর দুধ বিক্রির কথা উল্লেখ রয়েছে। আপনার বক্তব্য সঠিক নয়। মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলার অধিকার আপনাদের কে দিয়েছে ? লাইসেন্স নেই অথচ দুধ বাজারজাত করছে। এটা দেখার দায়িত্ব কার ? জবাবে আইনজীবী বলেন,এটা দেখার দায়িত্ব কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের।

এ সময় দুদকের আইনজীবী মামুন মাহবুব ও রাষ্ট্রপক্ষের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন বলেন, আইনে বিএসটিআইকে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারা দায়িত্ব এড়িয়ে অন্যের উপর দোষ চাপাচ্ছেন। এজন্য আদালতকে কঠোর হতে হবে। এসময় বিএসটিআইয়ের আইনজীবী আদালতকে বলেন, বেআইনী ভাবে যারা দুধ ও দই বাজারজাত করছে তাদের পণ্য ধ্বংস করার আদেশ দিন। তখন আদালত বলেন,আপনারা স্ব বিরোধী কথা বলছেন। একটু আগে বললেন, দেখার দায়িত্ব আপনাদের না। এখন আবার ধ্বংস করার আদেশ চাচ্ছেন। এসব বাদ দিন। আগে আপনারা তালিকা দাখিল করুন। বাকীটা আদালত দেখবে। দুধ ও দুগ্ধজাত পণ্য নিয়ে তার দেওয়া প্রতিবেদন সম্পর্কে কোন প্রশ্ন থাকলে তা আদালতকে অবহিত করতে বলা হয়েছে। সম্পাদনা : মুসবা তিন্নি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত