প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আজ অস্ট্রেলিয়া বধের স্বপ্ন, আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশের

নিউজ ডেস্ক : দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক জয়ের পর ক্রিকেট বিশ্বে প্রশংসার জোয়ারে ভাসছে বাংলাদেশ। এর ছোঁয়া লেগেছে লাল-সবুজের প্রতিনিধি টিম টাইগার্সের মধ্যেও। টন্টনের হাজার হাজার দর্শককে আবেগে ভাসিয়ে দেয়া সেই অবিস্মরণীয় জয়ের রেশ কাটতে না কাটতেই মাশরাফি বাহিনী সাবেক পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আজ নটিংহ্যামের ট্রেন্ট ব্রিজে বাইশ গজের লড়াইয়ে নামছে। যাদের সঙ্গে একদিনের ম্যাচে ১৯ বারের মুখোমুখিতে জয় কেবল ১টি। তাও ১৪ বছর আগে আশরাফুলের অনন্য এক সেঞ্চুরিতে ভর করে ইতিহাস গড়া জয়। রেকর্ড, পরিসংখ্যান আর শক্তি-সামর্থ্যে টিম অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে থাকলেও ফিঞ্চদের বিপক্ষে মাশরাফিদের হার না মানা মনোভাব, ইস্পাত কঠিন দৃঢ়তা আর আত্মবিশ্বাসই বড় শক্তি। যেভাবে একের পর এক বাধা পেরিয়ে এগিয়ে চলছে মাশরাফি বাহিনী তাতে অজেয় অস্ট্রেলিয়ার সামনে এবার নিজেদের ছাপিয়ে যাওয়ার পালা। বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় ট্রেন্ট ব্রিজে দল দুটো একে অপরের মুখোমুখি হবে। যায়যায়দিন

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দাপুটে জয় দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু করা টিম টাইগার্স, নিউজিল্যান্ড
ও ইংল্যান্ডের সঙ্গে হোঁচট খেলেও ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে জয় দিয়ে আরেকবার বিশ্বমঞ্চে বাঘের গর্জন শুনিয়েছে। দুই ম্যাচ হারের পর সহজ প্রতিপক্ষ লংকানদের সঙ্গে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হওয়ায় সেমিফাইনালের লড়াইয়ে টিকে থাকার কঠিন সমীকরণে পড়ে যায় স্টিভ রোডসের শীর্ষরা। টিকে থাকতে হলে প্রতিটি ম্যাচই জেতার লক্ষ্য নিয়ে প্রথম আঁচড়টা ক্যারিবীয়দের বেশ ভালোই দিয়েছে মাশরাফি বাহিনী। ১০ ওভার ও ৭ উইকেট হাতে রেখেই বিশ্বকাপের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড গড়ে পয়েন্ট টেবিলের ৮ নাম্বার পজিশন থেকে এক লাফে ৫ নাম্বারে চলে এসেছে। এবার অস্ট্রেলিয়াকে কুপোকাতের স্বপ্ন দেখছে মাশরাফি-সাকিবরা।

অন্যদিকে বিশ্বকাপের শুরু থেকেই অস্ট্রেলিয়া নিজমূর্তি ধারণ করেছে। অলরাউন্ডার মার্কাস স্টয়নিসের চোটেও বিন্দুমাত্র প্রভাব ফেলেনি তাদের পারফরমেন্সে। একের পর এক ব্যাটিং লাইনআপকে উড়িয়ে দিচ্ছেন মিচেল স্টার্ক। ইনিংসের শুরু থেকেই জুটি গড়েছেন অ্যারন ফিঞ্চ আর ডেভিড ওয়ার্নার। আর মিডল অর্ডারে ঢাল হয়ে দাঁড়াচ্ছেন স্টিভেন স্মিথ। সেমিফাইনালে ওঠা এখন তাদের সময়ের অপেক্ষা মাত্র। এর ওপর সহকারী কোচ ব্র্যাড হ্যাডিন বলে বসেছেন যে অস্ট্রেলিয়া তাদের সেরাটা এখনও মেলে ধরেনি! তাহলে ভাবুন তো, সেরাটা না দিয়ে এ অবস্থা আর যদি সেরাটা খেলে তখন? টাইগারভক্তদের এখন একটাই প্রার্থনা অন্তত আজকের ম্যাচে ক্যাঙ্গারু বাহিনী তাদের সেরা ফর্ম ফিরে না পাক।

দলীয় নৈপুণ্যে অস্ট্রেলিয়া এখন পয়েন্ট টেবিলের দুই নাম্বার অবস্থানে রয়েছে। আফগানিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানোর পর ওভালে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ভারতের কাছে হেরে বসে ফিঞ্চরা। তবে পাকিস্তানের সঙ্গে দুর্দান্ত এক জয় দিয়ে আত্মবিশ্বাসের চূড়ায় অজি বাহিনী। অথচ এই দলটাই বিশ্বকাপের আগে বল টেম্পারিং কান্ডে ওয়ার্নার-স্মিথ নিষিদ্ধ হওয়ার পর ভয়ংকর বাজে অবস্থার ভেতর দিয়ে গেছে। ক্রিকেটের সবসময়ের পরাশক্তি এই দলটিকে মুদ্রার উল্টো পিঠও দেখতে হয়। তবে বিশ্বকাপের আগে ভারতের মাটিতে অবিশ্বাস্য সিরিজ জিতে চেনা ছন্দে ফিরে পায় অজি বাহিনী। এরই মধ্যে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে দলে থিতু হয়েছেন ওয়ার্নার স্মিথরাও। আগের বিশ্বকাপের সেরা বোলার তকমাধারী মিচেল স্টার্ক দীর্ঘ ইনজুরি শেষে প্রত্যাবর্তনের মঞ্চ হিসেবে বিশ্বকাপকেই বেঁচে নিয়ে নিজের রঙে রাঙাচ্ছেন।

মারকুটে ব্যাটসম্যান ফিঞ্চ, ওয়ার্নার, স্মিথ, ম্যাক্সওয়েল কিংবা গতিদানব স্টার্ক-কামিন্স-কোল্টারনাইলরা যেকোন দলের বিপক্ষেই ভয়ংকর। তবে সাকিব-লিটনদেরও জানা আছে অস্ট্রেলিয়াকে কুপোকাত করার মন্ত্র। এ বিশ্বকাপ আসরে ব্যাট হাতে রানের পসরা সাজিয়ে বল হাতে ছড়ি ঘুরিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন কেন তিনি বিশ্বসেরা। এই টুর্নামেন্টে সাকিব ছাড়াও সাইফুদ্দিন লিটনরা ইতিমধ্যেই তাদের জাত চিনিয়ে দিয়েছে। টিম টাইগার্স দুটো জিতেছে, দুটো হেরেছে ঠিকই, কিন্তু জয় এসেছে দক্ষিণ আফ্রিকা আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। আর দুটো ম্যাচেই প্রথম থেকে আধিপত্য বিস্তার করেছে তারা। এমনকি নিউজিল্যান্ড যে নিউজিল্যান্ড, তাদেরও রীতিমতো ঘাম ঝরিয়ে জিততে হয়েছে বাংলাদেশের সঙ্গে। কিন্তু সামনে যেহেতু অস্ট্রেলিয়া, আরও ভালো খেলতে হবে বাংলাদেশকে।

ইংল্যান্ড আর বৃষ্টি যেন একই সূত্রে গাঁথা। আজ ম্যাচের দিনও বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির শংকা রয়ে গেছে ট্রেন্ট ব্রিজে। সকাল-দুপুর-বিকাল-সন্ধ্যা আর রাত আকাশের একটা অংশ মেঘাচ্ছন্ন থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়ার পূর্বাভাস। এর মধ্যে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা প্রায় ৩১ শতাংশ। বৃষ্টিতে এর আগেও ভেসে গেছে বিশ্বকাপের চারটি ম্যাচ। পয়েন্ট ভাগাভাগি করতে বাধ্য হয়েছে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, ভারত, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও দক্ষিণ আফ্রিকার। নতুন করে আর কোন ম্যাচ যেন পরিত্যক্ত না হয় সেটাই এখন ক্রিকেটপ্রেমীদের প্রধান চাওয়া।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত