প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আইনি দুর্বলতার কারণে ধর্ষণ মামলার অনেক অভিযুক্তরা পার পেয়ে যাচ্ছেন ,দাবি নারীপক্ষের

দেবদুলাল মুন্না:বাংলাদেশে আইনে দুর্বলতার কারণে ধর্ষণের মামলায় অনেক অভিযুক্ত পার পেয়ে যাচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের অভিযোগ। তারা বলছেন, আইনের মধ্যে এমন কিছু বিষয় রয়েছে, যেগুলো ধর্ষিতার বিচার পাওয়ার ক্ষেত্রে অন্তরায়।বেসরকারি সংস্থা নারীপক্ষ বলছে, তারা এক গবেষণার অংশ হিসাবে ২০১১ সাল থেকে ২০১৯ সালের মার্চ পর্যন্ত ছয়টি জেলায় ধর্ষণের মামলা পর্যবেক্ষণ করেছে। এ গবেষণাটির পরিচালক এবং নারীপক্ষের প্রকল্প পরিচালক রওশন আরা বলেন ‘এ সময়ে ৪৩৮০টি ধর্ষণের মামলা হয়েছে, কিন্তু সাজা হয়েছে মাত্র পাঁচ জনের।যা অনভিপ্রেত।’সংস্থাটি বলছে, ঢাকা ছাড়া অন্য যেসব জেলা থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে ঝিনাইদহ, জামালপুর, জয়পুরহাট, সিরাজগঞ্জ, ফেনী ।

রওশন আরা বলেণ, ‘এই গবেষণাটি পরিচালনার জন্য নারীপক্ষের তরফ থেকে থানা, হাসপাতাল এবং আদালত এ তিনটি জায়গা থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ধর্ষণের ঘটনার পর বিচার প্রক্রিয়ার সাথে এ তিনটি জায়গা জড়িত। সাধারণত এ তিনটি জায়গায় নারীরা যায়। সেখানে তাদের সাথে কি ধরণের ব্যবহার করা হয় এবং মামলাগুলো কিভাবে দেখা হয় এসব বিষয় উঠে এসেছে নারীপক্ষের গবেষণায়।’

ধর্ষণের মামলায় বেশিরভাগ অভিযুক্ত খালাস পেয়ে যাবার মূল কারণ সাক্ষীর অভাব।এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সারা হোসেন বলেন, ‘এখানে একটি বড় কারণ হচ্ছে, যিনি ঘটনার শিকার এবং অন্যান্য সাক্ষীরা যদি থেকে থাকেন, তারা অনেক সময় নানা ধরণের হুমকির সম্মুখীন হয়। সেই হুমকির ক্ষেত্রে তাদের কোন সুরক্ষা থাকেনা।এখনো দেশে ‘ধর্ষণ’ সংজ্ঞায়িত করা হয় ১৮৬০ সালের দণ্ডবিধি অনুযায়ী। আমাদের আইনে এখনো বলা আছে যে একজন যদি ধর্ষণের অভিযোগ করেন, তাহলে বিচারের সময়ও তার চরিত্র নিয়ে নানান ধরণের প্রশ্ন করা যাবে।আইনে এ ধরণের বিষয়টি থাকা নারীর জন্য বেশ অবমাননাকর বিষয়।’

এদিকে নারীপক্ষের রওশন আরা বলেন,‘ধর্ষণের মামলা নিয়ে যেসব নারী আদালতে দাড়িয়েছে তাদের অনেকেরই অভিজ্ঞতা খুবই খারাপ। অভিযুক্তের আইনজীবীর দ্বারা তারা এমন জেরার মুখে পড়েন যা তাদের মর্যাদাকে আরো ভূলুণ্ঠিত করে এমটাই মনে করেন ।আদালতে প্রশ্ন করা হয় কেন তাকে রেপ করা হলো? কেন সে ওখানে গিয়েছিল? অন্যদের তো ধর্ষণ করা হয়নি, তাহলে তোমাকে কেন করলো? মানে দোষটা চাপানো হয় নারীর উপরে।’
এ বিষয়ে সারা হোসেন বলেন,‘বিচারকের হাতে অনেক ক্ষমতা আছে। তিনি চাইলে এ ব্যাপারগুলো কিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন।এই আইন সংস্কারের জন্য বাংলাদেশের আইন কমিশনের তরফ থেকে সুপারিশও করা হয়েছে। কিন্তু সে বিষয়ে এখনো কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত