প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রোহিঙ্গারা ইংরেজি শেখার মাধ্যমে জয় করতে পারেন তাদের হারানো জন্মভূমি, বললেন ভিওএ লার্নিং ইংলিশের প্রধান হাই ডো

কেএম নাহিদ : কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভিওএ লার্নিং ইংলিশের প্রধান হাই ডো’র তত্ত্বাবধানে শতাধিক ইংরেজি শিক্ষককে বিশেষ প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। শিশুদের ইংরেজি শেখানো যে অনেকটা ম্যাজিকের মতো এর বেশ কিছু কৌশল শিখিয়ে গেলেন ভয়েস অফ আমেরিকা লার্নিং ইংলিশের প্রশিক্ষক আনা এবং ক্যাটি। ভয়েস অব আমেরিকা

হাই ডো বলেন, ইংরেজি কেবল একটি ভাষা নয় এখন এটি দক্ষতাও। তাই ইংরেজি শেখার মাধ্যমে পৃথিবীকে জয় করা সহজ। রোহিঙ্গারা জয় করতে পারেন তাদের হারানো জন্মভূমি। রোহিঙ্গাদের ইংরেজি শেখাতে দরকার বিশেষ প্রশিক্ষণ কৌশল।

ইংরেজি প্রশিক্ষণে সহায়তা অব্যাহত রাখার কথা জানিয়েছেন ভয়েস অফ জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর। ইউএনএইচসিআরের ব্যবস্থাপনায় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক কোডেককে সাথে নিয়ে ভিওএ’র ৬দিনের শিক্ষক প্রশিক্ষণটি ইতোমধ্যেই রোহিঙ্গা শিশুদের মাঝে প্রভাব ফেলেছে। কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ব্রাইট স্টার প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক খালেদা বেগম রপ্ত করেছেন ভিওএ’র ইংরেজি প্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষণে অংশ নেয়া মুহাম্মদ সুলতান মনে করেন, রোহিঙ্গাদের জন্য ইংরেজি শেখার এই পদ্ধতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

হাই ডো নিজেও একজন শরণার্থী, ভিয়েতনামের যুদ্ধের সময় ১৯৭৫ সালে স্বপরিবারে বোটে করে ৭দিন দক্ষিণ চীন সমুদ্রে ভেসে আমেরিকায় পৌঁছেছিলেন। কক্সবাজারের শরণার্থী ক্যাম্পের রোহিঙ্গাদের মাঝে তিনি বারবার নিজের প্রতিচ্ছবি খুঁজে পাচ্ছিলেন। তাই তিনি রোহিঙ্গাদের ইংরেজি শেখানোর কাজটি আগ্রহের সাথেই চালিয়ে যেতে চান।

কক্সবাজারের ৩২টি ক্যাম্পে গাদাগাদি করে বসবাস করছে ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা। প্রত্যাবাসনের প্রহর গুণলেও সহসাই কোন সমাধান না হওয়ায় অলস সময় কাটাচ্ছেন তারা। তাই পড়ালেখা এবং দক্ষতা বৃদ্ধিতে খুবই আগ্রহী হয়ে উঠেছেন রোহিঙ্গারা।

ভয়েস অফ আমেরিকা লার্নিং ইংলিশের প্রশিক্ষণকে তাই রোহিঙ্গারা খুবই মর্যাদার সাথে গ্রহণ করেছেন। প্রশিক্ষণটি চালু রাখার উপর গুরুত্বারোপ করেছেন ইউএনএইচসিআর। রোহিঙ্গাদের এমন প্রত্যাশা ইংরেজি শেখার মাধ্যমে নিজের অধিকার আদায়ে সচেতন হবেন, এবং নাগরিকত্ব নিয়ে মিয়ানমারে ফিরে যাবেন ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত