প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গাইবান্ধার ৭ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা

রফিকুল ইসলাম,গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধার ৭টি উপজেলার মধ্যে ৬টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির স্থানীয় সরকার নির্বাচনী বোর্ড দলীয় মনোনয়ন দিয়েছেন। সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় মনোনয়ন এ পর্যায়ে দেয়া হয়নি।

চেয়ারম্যান পদে যাদের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে তারা হলেন- গাইবান্ধা সদর উপজেলায় শাহ সারোয়ার কবীর। ছাত্র জীবন থেকে তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। পরবর্তীতে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে তিনি সদর থানা কমিটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি জেলা কমিটির সদস্য। তার দাদা শাহ আব্দুল হামিদ ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের প্রথম স্পীকার।

সাদুল্যাপুর উপজেলায় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে শাহরিয়ার খান বিপ্লবকে। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক। তিনি ছাত্রজীবনে সাদুল্যাপুর ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি, ছাত্রলীগ উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

পলাশবাড়ি উপজেলায় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে একেএম মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎকে। তিনি ২০১১ সালের উপজেলা নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ছাত্র জীবনে তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন এবং বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে আব্দুল লতিফ প্রধানকে। তিনি পর পর তিনবার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। বর্তমানে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এরআগে তিনি উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। নির্বাচনে অংশ গ্রহণের জন্য তিনি চেয়ারম্যান পদ থেকে সম্প্রতি পদত্যাগ করেন।

সাঘাটা উপজেলায় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে অ্যাডভোকেট সামছিল আরেফিন টিটুকে। তিনি বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি গাইবান্ধা জজ কোর্টের আইন পেশার সাথে জড়িত। ক্লিন ইমেজের ব্যক্তি হিসেবে সকল মহলের কাছে গ্রহণ যোগ্য নেতা হিসেবে তিনি পরিচিত।

ফুলছড়ি উপজেলায় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে জিএম সেলিম পারভেজকে। তিনি বর্তমানে ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। ছাত্রজীবন থেকে তিনি ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ার পর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম পারভেজ সেলিম জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তিনি বলেন, দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথে থেকে নির্যাতন, নিপীড়ন, হামলা, মামলা ও কারাবরণ থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে ধারণ ও লালন করে আসছি। দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তারই পুরস্কার হিসেবে আমাকে নৌকা মার্কা উপহার দিয়েছেন। আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলার নদী ভাঙা, চর এলাকা থেকে শুরু করে ফুলছড়ির আপামর জনতা নৌকায় ভোট দিয়ে এই পদে জয়লাভ করে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বিজয় উপহার দেবো বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অপরদিকে পলাশবাড়ি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রাপ্ত সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান (‘৯-২০১৪ সাল) একেএম মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ জানান, তৃণমুল পর্যায়ের নেতাকর্মী ও পলাশবাড়ির জনগণের চাহিদা ছিল তাকে মনোনয়ন দেয়ার। দলীয় সভানেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণের সেই চাহিদা পূরণ করেছেন। এজন্য তার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়নে নেত্রী যে ভূমিকা রাখছেন আমার এলাকায় সেই উন্নয়ন কর্মকান্ডকে তরান্বিত করতে আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে তা এগিয়ে নিয়ে যেতে ভূমিকা রাখবো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত