প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

নামাজে হাত কখন কী অবস্থায় রাখতে হয়?

আমিন মুনশি : নামাজে হাত কখন কী অবস্থায় রাখতে হয়, হাদিসের আলোকে তা এ রকম-

১. দু’পায়ের আঙুলগুলো কিবলামুখী করে রাখা এবং উভয় পায়ের মাঝে চার আঙুল বা আধা হাত ফাঁকা রাখা। কারও শরীর বেশি মোটা হলে এর বেশিও ফাঁকা রাখা যাবে। [নাসায়ি শরিফ, হাদিস : ৮৯২; হিন্দিয়া, খণ্ড : ১, পৃষ্ঠা : ৭৩]

২. তাকবিরে তাহরিমা বা শুরুর আল্লাহু আকবর বলার সময় চেহারা কিবলার দিকে রেখে দৃষ্টি সিজদার জায়গায় রাখা। হাত উঠানোর সময় মাথা না ঝুঁকানো। [তিরমিজি শরিফ, হাদিস : ৩০৪; মুস্তাদরাক, হাদিস : ১৭৬১]

৩. উভয় হাত কান পর্যন্ত উঠানো। এ সময় হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি কানের লতি পর্যন্ত উঠালেই হয়, কানে হাত লাগানো জরুরি নয়। [মুসলিম শরিফ, হাদিস : ৩৯১]

৪. হাত উঠানোর সময় আঙুলগুলো ও হাতের তালু কিবলামুখী করে রাখা। [তাবরানি আওসাত, হাদিস : ৭৮০১]

৫. আঙুলগুলো স্বাভাবিকভাবে রাখা। একেবারে মিলিয়ে বা একেবারে ফাঁকা করে না রাখা। [মুস্তাদরাক, হাদিস : ৮৫৬]

৬. হাত বাঁধার সময় ডান হাতের তালু বাম হাতের পিঠ বা পাতার ওপর রাখা। [আবু দাউদ শরিফ, হাদিস : ৭২৬]

৭. ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি ও কনিষ্ঠাঙ্গুলি গোলাকার বৃত্ত বানিয়ে বাম হাতের কব্জি ধরা। [তিরমিজি শরিফ, হাদিস : ২৫২]

৮. অবশিষ্ট তিন আঙুল বাম হাতের ওপর স্বাভাবিকভাবে রাখা। [ফাতহুল কাদির, খণ্ড : ১, পৃষ্ঠা : ২৫০]

৯. নাভির নিচে হাত বাঁধা। স্বাস্থ্য বেশি মোটা হলে স্বাভাবিকভাবে ছেড়ে দেয়া, যেখানে গিয়ে থামে। [আবু দাউদ, হাদিস : ৭৬৫; হিন্দিয়া, খণ্ড : ১, পৃষ্ঠা : ৭৩]

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত