প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় হোটেল শ্রমিকদের প্রচার মিছিল

বাজারদরের সাথে সংগতিপূর্ণভাবে হোটেল সেক্টরে নিম্নতম মজুরি ২০ হাজার টাকা ঘোষণা, হোটেল সেক্টরে সরকার ঘোষিত
নিম্নতম মজুরি কার্যকর, ৮ ঘন্টা কর্ম দিবস, নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্রসহ শ্রম আইন বাস্তবায়ন, বর্তমান শ্রমআইনের সংশোধনী প্রস্তাবের ২৬ ধারাসহ সকল শ্রমিকস্বার্থ বিরোধী কালাকানুন বাতিল করে গণতান্ত্রিক শ্রমআইন প্রণয়ন, শ্রমিকদের জন্য রেশনিং চালু এবং সিলেটে স্থায়ী শ্রম আদালত স্থাপন করার দাবিসহ ৭ দফা দাবিতে আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ হোটেল রেস্টুরেন্ট সুইটমিট শ্রমিক ফেডারেশন রেজিঃ বি-২০৩৭ এর সিলেট বিভাগীয় কমিটির উদ্যোগে সিলেট কোর্ট পয়েন্টে বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

বিভাগীয় সমাবেশের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে ২২ সেপ্টেম্বর মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলায় মৌলভীবাজার জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন এর কুলাউড়া কমিটির উদ্যোগে এক প্রচার মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। ২২ সেপ্টেম্বর বিকেরে কুলাউড়া রেল স্টেশন প্রাঙ্গণ হতে শুরু হয়ে মিছিলটি স্টেশন রোড, দক্ষিণ বাজার, উত্তরবাজার প্রদক্ষিণ করে। পরে উত্তরবাজার এলাকায় হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন কুলাউড়া উপজেলা কমিটির আহবায়ক মোঃ জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত পথসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ হোটেল রেস্টুরেন্ট সুইটমিট শ্রমিক ফেডারেশন এর কেন্দ্রীয় সদস্য ও সিলেট বিভাগীয় কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক মোঃ মোস্তফা কামাল এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রজত বিশ্বাস ও সিলেট জেলা কমিটির যুগ্ম-সম্পাদক রমজান আলী পটু।

পথসভায় আরও বক্তব্য রাখেন মৌলভীবাজার জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন রেজিঃ নং চট্টঃ ২৩০৫ এর সহ-সভাপতি মোঃ ছায়েদ মুন্সী ও সাবেক সভাপতি আবুল কালাম, কুলাউড়া উপজেলা কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক হারুন মিয়া, সুমন মিয়া, বিল্লাল হোসেন প্রমূখ। সভায় বক্তারা বর্তমান শ্রম আইনের ২৬ ধারাসহ শ্রমিক স্বার্থবিরোধী বিভিন্ন ধারাসহ মন্ত্রীসভায় অনুমোদিত প্রস্তাবিত শ্রমআইন বাতিল করে আইএলও কনভেনশন ৮৭ ও ৯৮ অনুযায়ী অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার নিশ্চিত করে গণতান্ত্রিক শ্রম আইন প্রয়ণন করার দাবি জানান। কর্মীসভায় বক্তারা আরও বলেন ২০০৯ সালের পর সরকার নতুন করে গত ১ মার্চ ২০১৭ তারিখে হোটেল সেক্টরের শ্রমিকদের জন্য নিম্নতম মজুরির গেজেট(এসআরও নং ৩৮-আইন/২০১৭) প্রকাশ করেন, বর্তমান ঊর্দ্ধগতির বাজারদরে সরকার ঘোষিত মজুরিতে পরিবার-পরিজন নিয়ে একজন শ্রমিক ১০ দিনও চলতে পারবে না। তারপরও মালিকরা সরকার ঘোষিত নিম্নতম মজুরি কার্যকর না করে বে-আইনিভাবে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছেন।

শ্রম আইনে স্বাস্থ্যকর পরিবেশে কাজ ও বাসস্থানের বিধান থাকলেও আমরা অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে কাজ করতে ও থাকতে হয়। আমরা দৈনিক ১০/১২ ঘন্টা অমানবিক পরিশ্রম করে অর্ধাহারে-অনাহারে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে বাধ্য হই।
কর্মীসভা থেকে আসন্ন দুর্গা পূজায় হিন্দু শ্রমিকদের মাসিক বেতনের সমপরিমান উৎসব বোনাস প্রদান, বাজারদরের সাথে সংগতিপূর্ণ নিম্নতম মজুরি ২০ হাজার টাকা ঘোষণা, হোটেল সেক্টরে সরকার ঘোষিত নিম্নতম মজুরি কার্যকর, ৮ ঘন্টা কর্মদিবস, নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্রসহ শ্রমআইন বাস্তবায়ন, চাল ডাল তেল লবনসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য কমানো, দফায় দফায় গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির পরিকল্পনা বাতিল, সর্বস্তরে রেশনিং চালু, গণতান্ত্রিক শ্রমআইন প্রণয়ন, সিলেটে স্থায়ী শ্রম আদালত স্থাপন ও ৯০ দিনের মধ্যে শ্রমআদালতের সকল মামলা নিষ্পত্তি করার দাবি জানান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত