প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাস্তা থেকে কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে দিলে গুনাহ মাফ হয়

আমিন মুনশি: রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘ঈমানের সত্তরটিরও বেশি শাখা রয়েছে। তন্মধ্যে সর্বোচ্চ শাখা হলো, ‘লা ইলাহা ইলাল্লাহ’ বলা। আর সর্বনিম্ন শাখা হলো, পথ থেকে কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে দেয়া।’ (বোখারি ও মুসলিম)

ইসলাম এমন এক শৃঙ্খলাবদ্ধ জীবন ব্যবস্থা, যার সম্পর্কে যত জানা যায় ততই মুগ্ধ হতে হয়। সে হিসেবে ইসলাম প্রত্যেক অধিকারীর অধিকার সঠিকভাবে ঘোষণা করেছে। যেমন মানবাধিকার, নারী অধিকার, মা-বাবার অধিকারসহ সব অধিকারের নিশ্চয়তা দিয়েছে। এমনকি ইসলাম রাস্তার অধিকারও সুনিশ্চিত করেছে। এটা এক বিশাল বিস্ময়ের ব্যাপার। রাস্তা থেকে কষ্টদায়ক কিছু সরানো পাপমুক্তির একটি মাধ্যম। বিশ্বনবি (সা.) ইরশাদ করেন, ‘এক ব্যক্তি রাস্তায় চলতে চলতে একটি কাঁটার ডাল পেল, সে তা সরিয়ে দিল। আল্লাহ তার এই কাজের কদর করলেন এবং তাকে পাপমুক্ত করে দিলেন।’ (বোখারি ও মুসলিম)

রাস্তা থেকে কষ্টদায়ক বস্তু দূর করা ঈমানের শাখা, পাপমোচন, সৎকর্ম এবং সদকাও। একজন মুসলমানের জন্য সমাজ কল্যাণমূলক গুরুত্বপূর্ণ যতগুলো সৎকর্ম আছে তার মধ্যে রাস্তার আদবও একটি। নবি করিম (সা.) বলেছেন, ‘একদা আমার কাছে উম্মতের ভালো ও মন্দ আমল পেশ করা হলো। এর মধ্যে ভালো আমলগুলোর অন্তর্ভুক্ত একটি আমল দেখলাম, তা হচ্ছে- পথ থেকে কষ্টদায়ক বস্তু অপসারণ করা।’ (মুসলিম)

বিশ্বনবি মুহাম্মদ (সা.) এরশাদ করেন, ‘মানবদেহে ৩৬০টি গ্রন্থি আছে। প্রত্যেক ব্যক্তির ওপর ওই গ্রন্থিগুলোর তরফ থেকে সদকা করা উচিত। সাহাবায়ে কেরাম (রা.) জিজ্ঞেস করলেন, এত সদকা দিতে কে সক্ষম হবে হে আল্লাহর রাসুল? তিনি বললেন, মসজিদ থেকে নোংরা জিনিস দূর করা, পথ থেকে কষ্টদায়ক বস্তু দূর করা একটি সদকা। যদি তাতে সক্ষম না হও, তবে দুই রাকাত চাশতের নামাজ তোমার সে প্রয়োজন পূর্ণ করবে।’ (আহমাদ, আবু দাউদ)

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত