প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উন্নয়নের পথে অদম্য বাংলাদেশ

ডেস্ক রিপোর্ট : বর্তমানে মতিঝিল থেকে উত্তরা যেতে সময় লাগে প্রায় দেড় থেকে দুই ঘণ্টা। সেই সময় যদি কমে শুধু ৩৮ থেকে ৪০ মিনিট হয় তাহলে বিষয়টি অবশ্যই অবাক করার মতো। সরকার এমনি এক প্রকল্প শুরু করেছে যার নাম মেট্রোরেল প্রকল্প। যা ২০২০ সালের শেষের দিকে পরীক্ষামূলকভাবে চালু হবে। আর পুরোপুরি চালু হতে অপেক্ষা করতে হবে ২০২১ সাল পর্যন্ত। ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) স্টলে মেট্রোরেলের (এমআরটি-৬) নকশার সামনে দাঁড়িয়ে এমনি বলছিলেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশব্যাপী উন্নয়ন মেলার ৩য় আসরের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচিগুলো সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য সবার সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের উন্নয়নটা হচ্ছে সার্বিকভাবে সব জনগণের জন্য। আর বিশেষ করে আমাদের গ্রামের মানুষের জন্য। আমরা প্রতিটি গ্রামকে দারিদ্র্যমুক্ত করতে চাই; চলাফেরার জন্য রাস্তাঘাট উন্নত করতে চাই। উন্নয়ন মানে হচ্ছে জনগণের উন্নয়ন। গ্রামের মানুষ, তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের উন্নয়ন। এই উন্নয়ন হচ্ছে সার্বিকভাবে (দেশকে) বিশ্ব দরবারে সম্মানজনক অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে।

শেখ হাসিনা বলেন, কোনো জেলার প্রশাসন ও পুলিশ সদস্যরা একদিনের বেতন দিয়ে তহবিল করে ভিক্ষুক পুনর্বাসনের উদ্যোগ নিলে প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকেও সেখানে অর্থ দেয়া হবে।

গাইবান্ধার সরকারি ভাতাভোগী এবং মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আগামী মাসেই বালাসী ঘাট ও বাহাদুরাবাদ ঘাটের মধ্যে পুনরায় ফেরি পারাপার শুরু করার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এ পথে যমুনা নদীর তলদেশে ভূগর্ভস্থ পথ তৈরির একটি পরিকল্পনাও সরকারের বিবেচনায় রয়েছে বলেও জানান তিনি। দেশের ৬৪ জেলার ৪৯২টি উপজেলায় তিন দিন এ মেলা চলবে।

বেলা ১১টায় শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বেলুন ও সাদা পায়রা উড়িয়ে উন্নয়ন মেলার উদ্বোধন করেন।

রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে আয়োজিত উন্নয়ন মেলা ঘুরে দেখা গেছে, মেলায় মেট্রোরেল থেকে শুরু করে সরকারি দপ্তরের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড জনসম্মুখে তুলে ধরা হয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয় এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে উন্নীত করতে সব জেলা ও উপজেলায় উন্নয়ন মেলার আয়োজন করেছে সরকার। সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ এবং এর অধীনস্থ দপ্তরের মোট ৯৪টি স্টল রয়েছে। মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও দপ্তর বা সংস্থাগুলো নিজেদের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও সাফল্য নিয়ে লিফলেট, পুস্তিকা প্রকাশ করেছে। স্টল পরিদর্শনে যাওয়া মানুষকে সেগুলো বিতরণ করা হচ্ছে। উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও সেবা নিয়ে আগতদের ব্রিফও করছেন স্টলের কর্মীরা। এ ছাড়া অনেক স্টলের সামনে বড় এলইডি স্ক্রিনে সাফল্যগাথা প্রচার করা হচ্ছে।

মেলায় কৃষি মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, অর্থ বিভাগ, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বিদ্যুৎ বিভাগ, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়, শিল্প মন্ত্রণালয়ের স্টল রয়েছে। দৃষ্টি নন্দন স্টল সাজিয়েছে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীও। তিন বাহিনীর স্টলে বেশ ভিড় দেখা গেছে। এ ছাড়া মেলায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর, বাংলাদেশ রেলওয়ে, জেলা শিক্ষা অফিস, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড, ঢাকা ওয়াসা, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, জেলা সমবায় অফিস, বাংলাদেশ ব্যাংক, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশন, মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন কেন্দ্র (স্পারসো), জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর, জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ), বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ), নৌপরিবহন অধিদপ্তর, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়, আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রকের দপ্তর, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, মৎস্য অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশন, বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী, ঢাকা জেলা পরিষদ, ঢাকা জেলা প্রশাসন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, ঢাকা জেলা পুলিশ, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি), জেলা তথ্য অফিস, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি), বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিসি), ন্যাশনাল হাউজিং অথরিটি, আবহাওয়া অধিদপ্তর, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর, সমাজসেবা অধিদপ্তর, গণপূর্ত অধিদপ্তর, জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো স্টল নিয়েছে। খবর ভোরের কাগজ’র।

প্রসঙ্গত, দেশের উন্নয়নের চিত্র জনগণের কাছে তুলে ধরতে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে তিন দিনব্যাপী এ মেলার আয়োজন করেছে ঢাকা জেলা প্রশাসন। চলবে আগামী শনিবার পর্যন্ত। মেলার দ্বিতীয় দিনে আজ সকাল ১০টায় ‘এমডিজি অর্জন ও এসডিজি অর্জনের পথে বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সমন্বয়ক (এসডিজি) মো. আবুল কালাম আজাদ। মেলার শেষ দিন আগামীকাল সকাল ১০টায় ‘বঙ্গবন্ধু উন্নয়ন দর্শন ও আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম এবং বিকেল ৩টায় সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। এ ছাড়াও মেলায় প্রতিদিন সন্ধ্যায় থাকছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত