শিরোনাম
◈ রাজধানী কারওয়ান বাজারে যমুনা এক্সপ্রেসের বগি লাইনচ্যুত ◈ মুজিবনগর দিবস, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ◈ মুজিবনগর দিবস বাঙালির শৃঙ্খলমুক্তির  ইতিহাসে অবিস্মরণীয় দিন: প্রধানমন্ত্রী ◈ তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকলে সন্ধ্যায় লোডশেডিং বাড়তে পারে ◈ বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে আরও ৫০ বিজিপি সদস্যের অনুপ্রবেশ ◈ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ ◈ মহেশখালী সমন্বিত উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইনের খসড়া আজ মন্ত্রিসভায় উঠছে ◈ গাজীপুরে কারখানায় বয়লার বিস্ফোরণে চীনা নাগরিকের মৃত্যু ◈ প্রধানমন্ত্রীর সৌদি আরব ও গাম্বিয়া সফর বাতিল ◈ এ বছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৫.৭%: আইএমএফ

প্রকাশিত : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০২:২৯ রাত
আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০২:২৯ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

দেশের প্রতিষ্ঠানগুলোকে নষ্ট করে শিক্ষা, স্বাস্থ্যের জন্য বিদেশে দৌঁড়াইতে লজ্জা লাগে না? 

ড. কামরুল হাসান মামুন

ড. কামরুল হাসান মামুন: সংবাদ সম্মেলন ভাবিয়া এক চ্যানেলে কিছুক্ষণ তাহা দেখিয়া খুবই অরুচি হইলো। ইহা সংবাদ সম্মেলন নাকি তোষামোদি সম্মেলন তাহা বুঝিত কিঞ্চিৎ দেরি হয়, আর তাতেই আমার কিছুক্ষণ দেখা হয়ে যায়। আমি বিস্মিত হয়ে যাই। আমি আঁতকে উঠি কীভাবে একটি দেশের এতো তোষামোদকারী রাজকীয় এহলান জারি করে, ঢাকঢোল পিটিয়ে একত্রিত হয় আর কীভাবেইবা তাদের খোলা মনে তোষামোদি করিতে দেওয়া হয়। আমি তো বেশিক্ষণ নিতে পারিনি। খানিকক্ষণ শুনেই প্রচণ্ড অরুচি হচ্ছিলো। দ্রুত বিদেশি চ্যানেলে পালিয়ে বেঁচেছি। কারণ দেশের সবগুলো চ্যানেল একই অনুষ্ঠান দেখাচ্ছিলো। 

২৩ ফেব্রুয়ারি জানলাম গণতন্ত্রের ইনডেক্সে আমরা দুই কদম পিছিয়েছি। পাসপোর্ট র‌্যাংকিংয়ে এক কদম পিছিয়ে আমরা এখন উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ১০২তম অবস্থানে আছি। বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায়ও বাংলাদেশ আছে। শিক্ষায় দক্ষিণ এশিয়ার তলানিতে। ফলে সাংবাদিকতা, শিক্ষকতা ইত্যাদি সব পেশাই তলানিতে। চারিদিকে রুচির বড়ই দুর্ভিক্ষ চলছে। শরীরে ভেতরে বড় কোনো রোগ বাসা বাঁধলে তার লক্ষণ বাহিরে দৃশ্যমান হয়। তেমনি দেশের বড় বড় সমস্যা হলে তার লক্ষণও দৃশ্যমান হয়। আমাদের বাংলা একাডেমীর বইমেলাই হলো দৃশ্যমান লক্ষণ।   

মনে পড়েছে অনেক বছর আগে ডেভিড ফ্রস্ট নামে এক ব্রিটিশ সাংবাদিক একদা ব্রিটিশ প্রাইম মিনিস্টার জন মেজরের সাক্ষাৎকার নিচ্ছিলেন। দেখেছিলাম ডেভিড ফ্রস্ট পায়ের উপর পা তুলে একটি রিভলভিং চেয়ারে বসে ডান থেকে বামে আবার বাম থেকে ডানে ঘুরে ঘুরে একের পর এক কঠিন সব প্রশ্ন করছিলেন। একবারের জন্যও তাকে ‘মাননীয়’ বা এই জাতীয় কোনো শব্দ ব্যবহার করতে শুনিনি। অন্য দিকে প্রাইম মিনিস্টারকে দেখেছি খুবই বিনীতভাবে বসে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছিলেন। আমাদের দেশের সাংবাদিকরা প্রশ্ন করার আগেই লাউয়ের ডগার মতো মাননীয় মাননীয় করতে করতে নুইয়ে যায়। প্রশ্ন করার আগে রিহার্সাল দিয়ে আসে যেন এমন প্রশ্ন মুখ দিয়ে বের না আসে যাতে প্রধানমন্ত্রী উত্তর দিতে বিব্রতবোধ করেন। আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা এক নদী রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছিলো কি এই দিনটা দেখার জন্য? লজ্জা হয় না? দেশের প্রতিষ্ঠানগুলোকে নষ্ট করে শিক্ষা, স্বাস্থ্যের জন্য বিদেশে দৌঁড়াইতে লজ্জা লাগে না? দেশের অর্থবিত্ত পাচার করে দেশটাকে চোচা বানাতে লজ্জা লাগে না? দেশের অধিকাংশ যুবক যুবতীর যদি বিদেশ চলে যাওয়ার বাসনা নিয়ে বড় হয় দেখে লজ্জা লাগে না?
 লেখক: অধ্যাপক, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়