শিরোনাম

প্রকাশিত : ০২ অক্টোবর, ২০২২, ০২:১৯ রাত
আপডেট : ০২ অক্টোবর, ২০২২, ০২:২১ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

তোয়াব খান : স্বাধীন দেশের প্রথম চাকরিচ্যুত সম্পাদক

হাসান শান্তনু

হাসান শান্তনু: প্রখ্যাত সাংবাদিক তোয়াব খান মারা গেছেন। জীবন-মৃত্যুর মাঝের রেখা মুছে দিয়ে তিনি অমরত্বের পথে যাত্রা করলেন। একুশে পদকপ্রাপ্ত বর্ষীয়ান এ সাংবাদিক ১ অক্টোবর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকার একটি হাসপাতালে বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তিনি ছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথমসারির বাংলা দৈনিকের প্রথম সম্পাদক, সরকারের সমালোলোচনা করে লেখা ছাপানোর ‘অপরাধে’ যাঁকে চাকরি হারাতে হয়েছিলো। দৈনিক বাংলার সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি, বরেণ্য কবি হাসান হাফিজুর রহমান, সম্পাদক তোয়াব খান ১৯৭৩ সালে ওই পত্রিকা থেকে চাকরিচ্যুত হন। 

৭৩ সালের ১ জানুয়ারি স্বাধীন দেশে প্রথম নিরস্ত্র মানুষের উপর পুলিশ গুলি চালায়। ওইদিন ঢাকায় অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের তথ্যকেন্দ্রের সামনে ভিয়েতনাম যুদ্ধবিরোধী সাধারণ মানুষের মিছিলে পুলিশ গুলি চালায়। নিহত হন দুজন। হাসান হাফিজুর রহমান সেদিন বিকেলে ঢাকা থেকে বিশেষ টেলিগ্রাম প্রকাশ করেন। পুলিশের গুলির প্রতিবাদ জানিয়ে পরেরদিন দৈনিক বাংলায় লেখা হয় সাহসী, ‘নিষিদ্ধ সম্পাদকীয়’। শিরোনাম ছিলো, ‘আদর্শ শাস্তি দিতে হবে’। সরকারি পত্রিকায় সরকারবিরোধী বক্তব্যের ‘অপরাধে’ তিনিসহ দৈনিক বাংলা থেকে তোয়াব খান চাকরিচ্যুত হন। 

দেশ স্বাধীনের পর দৈনিক পাকিস্তান থেকে নাম বদলে যাওয়া দৈনিক বাংলার প্রথম সম্পাদক ছিলেন সাংবাদিকতায় নক্ষত্র  তোয়াব খান। ১৯৭২ সালের ১৪ জানুয়ারি তিনি দৈনিক বাংলার সম্পাদকের দায়িত্ব পান। ১৯৭৪ সালে ‘দি সুপ্রিম টেস্ট’ শিরোনামে সম্পাদকীয় লেখায় চাকরিচ্যুত হন ইংরেজি দৈনিক অবজারভারের সম্পাদক আবদুস সালাম। পত্রিকায় চাকরি হারালেও হাসান হাফিজুর রহমান ও তোয়াব খানকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আরো সম্মানজনক পদে দায়িত্ব দেন। তাঁদের চাকরিচ্যুত করার সিদ্ধান্ত সেদিন যারাই নিক, ওই কাণ্ডের জন্য সমালোচিত হতে হয় বঙ্গবন্ধুর সরকারকেই। 

দৈনিক জনকণ্ঠের প্রকাশনা শুরু থেকে গত বছরের অক্টোবর পর্যন্ত পত্রিকাটিতে উপদেষ্টা সম্পাদকের পদে ছিলেন তোয়াব খান। এক লেখার জের ধরে তাঁকে কারাগারে যেতে হয়, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে তখন সরকারে ছিলো বিএনপি। ঐতিহ্যবাহী পত্রিকা দৈনিক বাংলার নতুন করে প্রকাশনা শুরু হয় গত ৪ সেপ্টেম্বর থেকে, সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন সাংবাদিকতায় প্রতিষ্ঠানতুল্য ব্যক্তিত্ব তোয়াব খান। পত্রিকাটির আনুষ্ঠানিক যাত্রার একমাস পূর্ণ হওয়ার আগেই সম্পাদকের বিদায় অনেক বেশি বেদনাবোধের। তাঁর প্রতি অন্তিম অভিবাদন, বিনম্র শ্রদ্ধা। আত্মার শান্তি কামনা। লেখক: সাংবাদিক। ফেসবুক থেকে 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়