শিরোনাম
◈ তিস্তায় নৌকাডু‌বিতে শিশু নিহত ◈ নৌকাডুবিতে নিখোঁজ অভিবাসীর খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে ইতালির কোস্টগার্ড ◈ উড়তে থাকা যুক্তরাষ্ট্রকে মাটিতে নামিয়ে আনলো দক্ষিণ আফ্রিকা ◈ ১৪ দিনে রেমিট্যান্স এলো ১৬৪ কোটি ডলার ◈ শরীয়তপুরে চেম্বার থেকে আইনজীবীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার ◈ বিশ্বকাপের সুপার এইট শুরু, শুক্রবার অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ   ◈ সেনাবাহিনী প্রধানের ৯, ১৭ ও ৩৩ পদাতিক ডিভিশনে বিদায়ী দরবার ◈ নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে শেখ হাসিনা শুক্রবার দিল্লি যাচ্ছেন, ২২ জুন শীর্ষ বৈঠক ◈ দেশ ছাড়িনি, চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে আছি: আছাদুজ্জামান মিয়া  ◈ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে উত্তর কোরিয়া-রাশিয়া একে অপরকে সাহায্য করবে, কৌশলগত অংশীদারত্ব চুক্তি সই

প্রকাশিত : ০৮ জুন, ২০২৪, ০১:৩২ রাত
আপডেট : ০৯ জুন, ২০২৪, ০৪:৫৪ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আম বেশি খেলে কী হয়?

ডেস্ক রিপোর্ট: গরমে আমের সুমিষ্ট স্বাদ কি উপেক্ষা করা যায়। সুস্বাদু এই ফলের জন্য আমরা বছরের অন্যান্য মাসগুলোতে অপেক্ষা করে থাকি। শুধু কি স্বাদ? পুষ্টিগুণেও অনন্য এই ফল। ভিটামিন এ, বি, সি, ই, কে এবং কপার, পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামের মতো খনিজসহ পুষ্টিগুণে পরিপূর্ণ একটি ফল হলো আম। আমে প্রিবায়োটিক ডায়েটারি ফাইবারও রয়েছে যা অন্ত্রে উপকারী ব্যাকটেরিয়ার খাবার হিসেবে কাজ করে। তবে বেশি আম খাওয়া হলে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। চলুন জেনে নেওয়া যাক-

ল্যাটেক্স এলার্জি

আপনার যদি ল্যাটেক্সে অ্যালার্জি থাকে তবে সতর্ক থাকুন। কারণ আমের প্রোটিন ল্যাটেক্সের মতোই। এটি চুলকানি এবং আমবাত বা অ্যানাফিল্যাক্সিসের কারণ হতে পারে। যার ফলে গলা ফুলে যেতে পারে এবং শ্বাস নিতে গুরুতর অসুবিধা হতে পারে।

রক্তে শর্করা বৃদ্ধি

ডায়াবেটিস রোগীদের দিনে একটির বেশি আম খাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত, কারণ এটি ব্লাড সুগার বাড়াতে পারে। এই ফলের বেশিরভাগই কার্বোহাইড্রেট। এটা বিশ্বাস করা কঠিন, তবে এই সুমিষ্ট ফলের শর্করা পরিশোধিত চিনির মতোই কাজ করতে পারে।

ডায়রিয়া

আম বেশি খেলে ডায়রিয়া হতে পারে, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। ফাইবার সমৃদ্ধ ফল অতিরিক্ত খাওয়া হলে তা ডায়রিয়ার কারণ হতে পারে। তাই সুষম অনুপাতে আম খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। খাবার খাওয়ার মিনিট পনেরো পরে আম খোসা ছাড়িয়ে টুকরো করে কেটে খেতে পারেন।

ওজন বৃদ্ধি

বেশি আম খাওয়া তা ওজন বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। একটি আমে প্রায় ২০১ ক্যালোরি থাকে। তাই প্রতিদিন মাত্র দুই কাপ (৩৩০ গ্রাম) খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

কৃত্রিমভাবে পাকানো আম এড়িয়ে চলুন

অনেক আম কৃত্রিমভাবে পাকানো হয়। আপনি যদি অতিরিক্ত রসালো এবং মিষ্টি আম খেয়ে থাকেন তবে সাবধান হন, কারণ সেগুলো রাসায়নিকভাবে পাকানো হতে পারে। আম রাসায়নিকমুক্ত কিনা তা পরীক্ষা করার সর্বোত্তম উপায় হলো - এক বালতি পানিতে আম রাখুন। যদি আম ডুবে যায়, তবে স্বাভাবিকভাবেই পাকা। আর যদি ভাসতে থাকে তবে তা কৃত্রিম উপায়ে পাকানো।

আম সম্পর্কে এমন অনেক কিছু আছে যা আপনি আগে পড়েননি। যাদের খাবারে অ্যালার্জি আছে তাদের অবশ্যই আম খাওয়ার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। সূত্র: ঢাকা পোস্ট

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়