শিরোনাম
◈ শান্তি-শৃঙ্খলা ফেরাতে আইনশৃঙ্খলা  বাহিনীকে কঠোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ◈ সরকার আলোচনার কোনো পরিস্থিতি রাখেনি, কর্মসূচী অব্যাহত রাখার ঘোষণা: বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন ◈ বিটিভিতে হামলা-আগুন, সম্প্রচার বন্ধ ◈ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ◈ আমরা ধৈর্যের পরীক্ষা দিচ্ছি, এটা দুর্বলতা নয়: ডিবিপ্রধান ◈ নরসিংদীতে গুলিতে নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থীর মৃত্যু, আহত শতাধিক ◈ চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ২ ◈ নেত্রকোনায় ইউএনও, অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ আহত অর্ধশত, ৭ আন্দোলনকারী গুলিবিদ্ধ ◈ শান্তিপূর্ণ সমাধানের দিকে এগোতে চায় সরকার: তথ্য প্রতিমন্ত্রী ◈ শিক্ষার্থীদের পরিবর্তে বিএনপি-জামাত আগুন-সন্ত্রাস নিয়ে মাঠে নেমেছে: ওবায়দুল কাদের   

প্রকাশিত : ২৮ মার্চ, ২০২৩, ১২:৪০ দুপুর
আপডেট : ২৯ মার্চ, ২০২৩, ১২:৫০ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বিএনপিকে আমন্ত্রণ জানানোতে সরকারের সংশ্লিষ্টতা নেই: সিইসি 

এম এম লিংকন: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল দাবি করে বলেন, এটা সত্যে মিথ্যে জানি না। অনেকে বলতে চেয়েছে এটা সরকারের একটি কূটকৌশল। এ আমন্ত্রণে ইসিরও কোনো কুটকৌশল ছিল না, কোনো চাপও ছিল না চিঠি দেওয়ার। মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) রাজধানীর নির্বাচন ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

এ সময় কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, আমি, আপনাদের মাধ্যম পুরো জাতিকে অবহিত করতে চাই, আশ্বস্ত করতে চাই- এ পত্রের সঙ্গে সরকারের কোনো সংস্রব নেই, সংশ্লিষ্টতা ছিল না। এটা যদি কেউ এটাকে কূটকৌশল হিসেবে মনে করতে চান-তাহলে এটা নির্বাচন কমিশনের কূটকৌশল হতে পারে; সরকারের কূটকৌশল এটা নয়। আর নির্বাচন কমিশন কখনও কূটকৌশল হিসেবে এ কাজটি করেনি।

তিনি বলেন, বিএনপিকে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো সংলাপে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি, অনানুষ্ঠানিক আলোচনার জন্যে কমিশন চিঠি দিয়েছে। মূল জিনিসটা হলো- আমরা কিন্তু সংলাপে আহ্বান করিনি। সংলাপ বিষয়টি আনুষ্ঠানিক। আমরা কোনো কোনোভাবেই উনাদের সংলাপে ডাকিনি। আমরা সুস্পষ্টভাবে বলেছি- আনুষ্ঠানিক না হলেও, আনুষ্ঠানিক মানে সংলাপ; অন্তত অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় আপনারা আসতে পারেন। অত্যন্ত বিনীতিভাবে এ আহ্বানটা করেছি।

সিইসি বলেন, দুটো কথা বলবো। বিভিন্ন গণমাধ্যমে দেখেছি- অনানুষ্ঠানিকপত্র দিয়েছি বিএনপি মহাসচিবকে। আনুষ্ঠানিক নয়, অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় অন্তত আপনার অংশগ্রহণ করতে পারেন। একটি চিঠি দিয়েছিলাম বৃহস্পতিবার শেষ বেলায়। আমার মনে হয়, চিঠিটা উনারা পেয়েছেন। আমার কাছে কোনো জবাব আসেনি। ধরে নিচ্ছি উনারা পেয়েছেন।কূটকৌশল নয়, আলোচনাই করতে চাই।

সিইসি জানান, ইসি একেবারেই প্রথম থেকে অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক এবং কার্ককর প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন প্রত্যাশা করে আসছে। ইসি মনে করে, গণতন্ত্রের স্বার্থে, নির্বাচনের স্বার্থে, দলীয় গণতন্ত্রের স্বার্থে দলগুলোর নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রয়োজন।

এ দলগুলো সংসদীয় গণতন্ত্রে দলীয় শাসনটাই মূখ্য। বিদ্রোহী প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নিয়ে সরকার গঠন কখনও সম্ভব হয় না। দলগুলোর চর্চার মাধ্যমে তা বিকশিত হোক, গণতান্ত্রিক সরকার সংহত হোক-এটা চেষ্টা করা হয়েছে।

এটুকুই স্মরণ করিয়ে দেওয়ার জন্য (এ ব্রিফিং); যদি কোনো ভুল বোঝাবুঝি হয়ে থাকে সেটা যেন নিরসন হয়। চিঠি কমিশন থেকে দেওয়া হয়েছে। সরকারের পরামর্শ অনুযায়ী নয়। আমরা ব্যথিত হই- যখন বলা হয় সরকারের আজ্ঞাবহ হয়ে কাজ করি, আজ্ঞা বহন করি নি। আমরা নির্বাচন বিষয় নিয়ে আলাপ করে আমাদের চিন্তার মধ্যে ফুটে উঠেছে-বিএনপির মতো দলকে নির্বাচনকে আনতে পারলে ভালো হয়।

তিনি বলেন, আমরা বলেছি-আপনাদের (বিএনপির) কৌশল থাকলে তার উপর ইসির কোনো মন্তব্য থাকবে না। তারপরও আমরা আলোচনা করতে চাই আপনাদের সঙ্গে। ফল ইতিবাচক হতেও পারে, নাও হতে পারে। প্রয়াস থাকবে। প্রয়াস গ্রহণ করতে বাধা থাকা উচিত নয়।

এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, আমরা কোনো চিঠি পাই নি। আমি চিঠি দিয়েছি, যে কোনো রেসপন্স আমাদে চিঠির মাধ্যমে দিতে হবে। ...আমরা আশা করি, যেহেতু মহাসচিব মহোদয়কে চিঠি দিয়েছি। যে কোনো বক্তব্য আমাদের কাছে পত্রের মাধ্যমে আসে সেটা কাঙ্ক্ষিত। এরপর আমরা আমাদের সিদ্ধান্ত নেবো। আগাম কোনো মন্তব্য নেই।

বিএনপি যদি আসেন কি আলোচনা হবে সেটা সে সময় বলা যাবে উল্লেখ করেন সিইসি। উনারা কি বলবেন, আমরা কি বলবো- আগাম কোনো বক্তব্য দিতে পারব না। উনারা যদি এজেন্ডা ঠিক করে দেয়, তখন আমরা কি করবো তখন কমিশন সমন্বিতভাবে সিদ্ধান্ত নেবে।

এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি জানান, কমিশনের পক্ষ থেকে চিঠি দেওয়া হয়েছে, সব কমিশনারই জানেন। সিইসির পত্র নয়, সিইসি লিখেছেন, কিন্তু কমিশনের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছে।

কূটনৈতিক মহলে সংলাপে আয়োজনের আলোচনার মধ্যে এমন চিঠি দেওয়া কিনা জানতে চাইলে সিইসি বলেন, এ ধরনের বিষয় আমাদের নলেজে নেই। আমাদের চিন্তা থেকে উদ্ভূত সিদ্ধান্ত থেকে এ চিঠি দেওয়া হয়েছে। চাপের কথা যেটা বলেছেন এটা সম্পূর্ণ অমূলক ধারণা। কতক্ষণ পর পর চাপ দেবে, আমরা দেবে যাবো- এটা হওয়ার কথা নয়।

বিএনপির চিঠি জবাব পেতে কতদিন অপেক্ষা করবে কমিশন- এ নিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে এড়িয়ে যান সিইসি।
এমএমএল/এসএ 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়