শিরোনাম
◈ আদালতের আদেশ তো শিক্ষার্থীদের পক্ষেই, তাহলে কার বিপক্ষে আন্দোলন: ওবায়দুল কাদের ◈ গণতন্ত্রের জন্যও শিক্ষার্থীদের লড়াই করার আহ্বান আমির খসরুর ◈ চাল কেজিতে ২ থেকে ৫ টাকা, সবজি ১৫ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে ◈ কোটাবিরোধীরা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা শনিবার ◈ ৫ শতাংশ কোটা পুনর্বহালের দাবিতে আন্দোলনে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সদস্যরা ◈ আনোয়ারা-ফৌজদারহাট পাইপলাইন মেরামত সম্পন্ন, কমবে গ্যাস সংকট ◈ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চীন সফরে বাংলাদেশ, ভারত ও চীন তিনদেশই খুশি ◈ আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটালে বরদাশত করা হবে না: ডিএমপি কমিশনার ◈ কোটা আন্দোলনকারীরা ঘরে ফিরে যাবে বলে আশাবাদ আইনমন্ত্রীর ◈ অতি বৃষ্টিতে রাজধানীর বেশিরভাগ এলাকায় হাঁটুপানি, জনজীবন বিপর্যস্ত

প্রকাশিত : ২৮ মার্চ, ২০২৩, ১১:৩২ রাত
আপডেট : ২৯ মার্চ, ২০২৩, ০৭:১০ সকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ব্রাহ্মণপাড়ায় মসজিদে ডুকে দুই তরুণকে ছুরিকাঘাত

শাহাজাদা এমরান: কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় পূর্ববিরোধের জের ধরে একটি মসজিদের ভেতরে দুই তরুণকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে পরে ছুরিকাঘাত করার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত ওই দুই তরুণকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়েছে। সোমবার (২৭ মার্চ) সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের রানীগাছ গ্রামের কেন্দ্রীয় মসজিদের ভেতরে। 

এ ঘটনায় মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) সকালে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।  

আহতরা হলেন- ওই গ্রামের মৃত আবু হাফিনের ছেলে মো.আব্দুল্লাহ আল রাজী ও তার চাচাতো ভাই একই গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে মাহাথির মৃধা ওরফে জামিল। আর অভিযুক্তরা হলেন- ওই গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে বাচ্চু মিয়া, জামাল মিয়া এবং বাচ্চুর ছেলে সাখাওয়াত হোসেনসহ কয়েকজন। 

স্থানীয় এলাকাবাসী ও আহতদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আব্দুল্লাহ আল রাজী ও তার চাচাতো 
ভাই মাহাথির সোমবার ইফতারের পর মাগরিবের নামাজ আদায় করতে তাদের বাড়ির সামনে অবস্থিত মসজিদে যায়। এ সময় নামাজ আদায়রত অবস্থায় মসজিদের ভেতরেই রামদা, ছুরি ও লাঠিসোটা নিয়ে ওই দুই তরুণের উপর হামলা চালায় অভিযুক্তরা। হামলাকারীরা ওই দুই তরুণকে এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকে। এক পর্যায়ে আব্দুল্লাহ আল রাজীর পিঠে এবং মাহাথিরের পায়ে ছুরিকাঘাত করে তারা। যাওয়ার সময় অভিযুক্তরা প্রকাশ্যে হুমকি দেয়- বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে তাদেরকে প্রাণে মেরে ফেলবে। 

সোমবার দুপুরে আহত আব্দুল্লাহ আল রাজীর ভাই আল বাকি বলেন, ঘটনার আগেরদিন ২৬ মার্চ বিকেলেও পূর্ববিরোধের জের ধরে ওই সন্ত্রাসীরা আহতদের সঙ্গে মসজিদের সামনে কথা-কাটাকাটিতে জড়িয়ে তাদেরকে মারধর করে। এক পর্যায়ে তারা আমাদের বাড়িতে ভাঙচুর চালায়। পরে আমরা বিষয়টি এলাকার বিশিষ্টজনদেরকে জানাই। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তাদেরকে হত্যার উদ্দেশ্যে মসজিদের ভেতরে হামলা চালানো হয়েছে।    

আল বাকি জানান, আমাদের বাড়ির সামনে অবস্থিত মসজিদটির প্রতিষ্ঠাতা আমার দাদা প্রয়াত আবদুস সামাদ মাস্টার। তবে বেশ কয়েক বছর ধরে অভিযুক্তরা মসজিদে নিজেদের কর্তৃত্ব দেখাতে চায়। আমাদের পাশাপাশি বাড়ির বাসিন্দা হওয়ায় তাদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিরোধ চলে আসছিলো। এরই মধ্যে রমজান আসায় প্রতিদিন রাত ২টায় মসজিদের মাইকে মানুষকে সেহেরী খেতে ডাকা শুরু হয়। এভাবে ভোর ৪টা পর্যন্ত মাইকে ডাকাডাকির কারণে মানুষের সমস্যা হয়। আমার ভাই মো.আব্দুল্লাহ আল রাজী অসুস্থ। সে মসজিদের পাশের একটি ঘরে থাকার কারণে ঘুমাতে পারে না। বিষয়টি মানুষের জন্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে ২৬ মার্চ সকালে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেয় সে। বর্তমানে অন্য কিছু না পেয়ে এই বিষয়টিকে সামনে এনে আমার ভাইদের ওপর দুই দফা হামলা চালিয়ে ওই অভিযুক্তরা।   

আল বাকি বলেন, আমার ভাই আহত আব্দুল্লাহ আল রাজী ঘটনাটি নিয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। আমরা অভিযুক্তদের বিচার চাই। তারা দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় সন্ত্রানী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। 

এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে অভিযুক্তদের সঙ্গে একাধিবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। 

সোমবার দুপুরে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান বলেন, এ ঘটনায় আহতদের একজন বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনার তদন্তে পুলিশ পাঠানো হচ্ছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

প্রতিনিধি/এসএ 
 

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়