শিরোনাম
◈ দেশের যেসব অঞ্চলে ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের আশঙ্কা ◈  সরকার থেকে বরাদ্দ করলে সংসদ সদস্যদের গাড়ি আমদানির প্রয়োজন নেই: সংসদে আলোচনা ◈ ঈদে যানজট এড়াতে ডিএমপির ২২ নির্দেশনা ◈ নেপিয়ার ঘাস খেয়ে মারা গেলো খামারের ২৬ গরু ◈ এমপি আনার হত্যা তদন্তে কোনো চাপ নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ তারেক রহমানসহ পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী ◈ সাধারণ নাগরিকের মতো করেই ড. ইউনূসের বিচার হচ্ছে: আইনমন্ত্রী ◈ ড. ইউনূসের কথা অসত্য, জনগণের জন্য অপমানজনক: আইনমন্ত্রী ◈ সরকারের ব্যাংকঋণে বেসরকারিখাতে বিনিয়োগ ব্যাহত হবে: সিপিডি ◈ বাবার হত্যার সঠিক বিচার চেয়েছেন নিহত আজিম আনারের কন্যা 

প্রকাশিত : ২৯ মে, ২০২৪, ০৫:৪১ বিকাল
আপডেট : ২৯ মে, ২০২৪, ০৫:৪১ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

মাটি হয়ে যাচ্ছে কোটি টাকার অকেজো গাড়িগুলো 

এম আর আমিন, চট্টগ্রাম: [২] রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের কয়েক কোটি টাকার অকেজো গাড়ি রক্ষণা বেক্ষণের অভাবে মাটির সাথে মিশে যাচ্ছে। সময়মতো নিলামের মাধ্যমে বিক্রি করতে পারলে যে পরিমান রাজস্ব পাওয়ার সম্ভাবনা ছিল তা ক্রমশই ক্ষীণ হয়ে পড়ছে। দ্রুত সময়ে নিলাম করতে না পারলে সবকিছু মাটি হয়ে যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে লোকবল সংকটের কারণে যথাসময়ে পরিত্যক্ত গাড়ির তালিকা করতে না পারায় টেন্ডার আহবান করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন দায়িত্বশীলরা।

[৩] জানা যায়, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন দফতরের কাজে ব্যবহৃত গাড়িগুলো একসময় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। তখন সেগুলো খোলা আকাশের নিচে জমিয়ে রাখা হয়। এসব পরিত্যক্ত গাড়ি নিলামের মাধ্যমে বিক্রি করে রাজস্ব আদায় করতে পারে কর্তৃপক্ষ। কিন্তু নিয়ম কানুনের দোহাই দিয়ে ও কতিপয় কর্মকর্তার অলসতা বা অবহেলার ফলে এক যুগে বেশি সময় ধরে এভাবে পড়ে থেকে গাড়ির বডিগুলোও মাটির সাথে মিশে যাচ্ছে। এই অবস্থায় নিলাম করা না হলে কিছুদিন পরে স্ক্র্যাপ হিসেবেও কেউ কিনবে না। ফলে মোটা অংকের রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে প্রতিষ্ঠান ও সরকার।

[৪] সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের অধীনে, প্রকৌশল, যন্ত্র প্রকৌশল, বাণিজ্যিক, ভূমি, অপারেশন, স্টোরস, নিরাপত্তা, হিসাবসহ বিভিন্ন দপ্তর রয়েছে। এসব দফরের ব্যবহৃত গাড়ি অকেজো হয়ে থাকলে তারা পরবর্তী কার্যার্থে সেসব গাড়ির তালিকা জিএম বরাবরে প্রেরণের কথা। কিন্তু সেসব দফতর থেকে তালিকা না পাওয়ায় কার্যকর কোন ব্যবস্থা নিতে পারছেনা জিএম।  

[৫] নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংশ্লিষ্ট একাধিক সুত্রে জানা যায়, কোন গাড়ি যখন অকেজো হয় তখন গাড়ির সাথে ব্যাটারী, ওয়ারিংসহ অনেক দামি খুচরা যন্ত্রাংশ থাকে। যত্রতত্র পড়ে থাকার ফলে এসব গাড়ি থেকে মালামাল চুরি হতে থাকে। একটা সময়ে গিয়ে শুধুমাত্র বডি ছাড়া আর কিছু থাকেনা। পরে আস্তে আস্তে গাড়ি বডিও মাটির সাথে মিশে গিয়ে লোহা মাটি এশাকার হয়ে যায়। তখন এগুলো আর বিক্রি হওয়ার সম্ভাবনাও থাকেনা। চোর চক্রের সুবিধার কথা বিবেচনা করে যথাসময়ে টেন্ডার না করার বিষয়টিও একেবারে উড়িয়ে দেয়া যায়না।  

[৬] এ বিষয়ে জানতে চাইলে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহা ব্যবস্থাপক (জিএম) নাজমুল ইসলাম বলেন, কোন গাড়ি যখন চলাচলের অনুপযোগী হয় তখন তা বিআরটিএ বা বুয়েট/চুয়েটের ইঞ্জিনিয়ার দ্বারা পরিক্ষা নিরিক্ষা করে চলাচলের অযোগ্য বা অকেজো ঘোষণা করতে হয়। ঘোষণা হওয়ার পর কয়টি গাড়ি পরিত্যক্ত হয়েছে স্ব স্ব দপ্তর প্রধান তার একটি তালিকা প্রস্তুত করে জিএম বরাবরে প্রেরণ করবেন, জিএম তখন ওই পরিত্যক্ত গাড়িগুলো নিলাম করে রাজস্ব আদায়ের ব্যবস্থা করবেন। তবে আমাদের এই কাজগুলো চলমান আছে। পরিপূর্ণ তালিকা পেলেই আমরা নিলামের মাধ্যমে বিক্রি করে রাজস্ব আদায় করব। 

[৭] তিনি আরও বলেন, লোকবল সংকটের কারনে একজন অফিসারকে একাধিক দায়িত্ব পালন করতে হয়, যে কারনে সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করতে অনেক বেগ পেতে হয়, ফলে সময়মতো সবকিছু করা সম্ভব হয়না। সম্পাদনা: এ আর শাকিল

প্রতিনিধি/এআরএস/একে

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়