শিরোনাম
◈ দেশের যেসব অঞ্চলে ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের আশঙ্কা ◈  সরকার থেকে বরাদ্দ করলে সংসদ সদস্যদের গাড়ি আমদানির প্রয়োজন নেই: সংসদে আলোচনা ◈ ঈদে যানজট এড়াতে ডিএমপির ২২ নির্দেশনা ◈ ব্রিকসকে দেওয়ার মতো অনেক কিছু রয়েছে বাংলাদেশের: ডা. দীপু মনি ◈ পল্টনে ফাইন্যান্স টাওয়ারের আগুন নিয়ন্ত্রণে ◈ নেপিয়ার ঘাস খেয়ে মারা গেলো খামারের ২৬ গরু ◈ এমপি আনার হত্যা তদন্তে কোনো চাপ নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ তারেক রহমানসহ পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী ◈ সাধারণ নাগরিকের মতো করেই ড. ইউনূসের বিচার হচ্ছে: আইনমন্ত্রী ◈ ড. ইউনূসের কথা অসত্য, জনগণের জন্য অপমানজনক: আইনমন্ত্রী

প্রকাশিত : ২৬ মে, ২০২৪, ০৬:৩৮ বিকাল
আপডেট : ২৬ মে, ২০২৪, ০৬:৩৮ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের র‌্যাম্পের পিলারে ফাটল

এম আর আমিন, চট্টগ্রাম: [২] চট্টগ্রাম নির্মাণাধীন এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের র‌্যাম্পের ৪টি পিলারে ফাটল দেখা দিয়েছে। লালখানবাজার এলাকায় নামা এ র‌্যাম্পের পিলারে এসব ফাটল দেখা যায়। 

[৩] এ বিষয়ে জানতে চাইলে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের প্রকল্পের পরিচালক প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমান বলেন, আমরা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের জন্য এই পষন্ত ৩৯০ টি পিলার করেছি কোন সমস্যা হয়নি। দুইটি পিলারে উপরে এক হাজার টন লোড একটি গাডার পাঁচশ টন করে। আমরা ডিজাইন অনুযায়ী কাজ করেছি আশা করি কোন সমস্যা হবে না। 

[৪] তিনি আরও বলেন, এটি হেয়ারলাইন ক্র্যাক (ফাটল)। নানা কারণে নির্মাণাধীন এমন অবকাঠামোতে এ রকম ফাটল হয়ে থাকে। এটা গভীর কোনো ফাটল বা বড় কোনো কিছু নয়। এটি আমরা ঠিক করে ফেলব। এই ফাটলে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েতে কোনো প্রভাব ফেলবে না। ফাটলগুলো মেরামতের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। তবে এগুলো কোনো গভীর ফাটল নয়, হেয়ারলাইন ক্র্যাক। এমন ফাটল যে কোনো নির্মাণাধীন অবকাঠামোতে হওয়া স্বাভাবিক। এতে অবকাঠামোর ওপর কোনো প্রভাব ফেলবে না। 

[৫] উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম নগরীর যানজট নিরসনের লক্ষ্যে ২০১৭ সালের ১১ জুলাই একনেক সভায় শহরের লালখান বাজার থেকে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পর্যন্ত ‘এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ’ প্রকল্প অনুমোদন করা হয়। প্রথমে প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় তিন হাজার ২৫০ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। তিন বছরের মধ্যে অর্থাৎ ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত প্রকল্পের কাজ শতভাগ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়নি। দ্বিতীয় দফায় ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়। তবে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তৃতীয় দফায় ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত সময় বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়। এই দফায় সময় বেড়েছে এক বছর। অর্থাৎ ২০২৩ সালের জুনে কাজ শেষ হওয়ার কথা। একই সময়ে প্রকল্পের নির্মাণ ব্যয় বাড়িয়ে চার হাজার ৩৬৯ কোটি ৭ লাখ ১০ হাজার ৮১৯ টাকা করা হয়। সিডিএর এই প্রকল্প যৌথভাবে বাস্তবায়ন করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স-র‍্যাংকিন। সম্পদনা: এ আর শাকিল

প্রতিনিধি/এআরএস

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়