শিরোনাম
◈ ঢাবিতে ছাত্রলীগের সঙ্গে কোটাবিরোধী শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ  ◈ স্বল্প সংখ্যক কোটা থাকতে পারে অনগ্রসর ও প্রতিবন্ধিদের জন্য: জি এম কাদের ◈ ৫ শতাংশ কোটা রেখে সংসদে আইন পাসের দাবিতে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম ◈ রেলওয়ের চাকরিতে ৪০ শতাংশ পোষ্য কোটা কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট ◈ আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ লেলিয়ে দেবেন না: সুপ্রিম কোর্ট বার সভাপতি ◈ জামালপুরে বন্যার পানিতে গোসলে নেমে ৪ জনের মৃত্যু ◈ সাংবাদিকদের পেনশন স্কিমে যুক্ত হওয়ার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর ◈ মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে এতো ক্ষোভ কেনো, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর ◈ ট্রাম্পের ওপর হামলা নিন্দনীয়: শেখ হাসিনা  ◈ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিকে আর্তমানবতার সেবায় আরও আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালনের আহ্বান রাষ্ট্রপতির

প্রকাশিত : ১১ জুন, ২০২৪, ০৮:৪৭ রাত
আপডেট : ১১ জুন, ২০২৪, ০৮:৪৭ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আদাবরে বিষাক্ত গ্যাসে এক ব্যক্তির মৃত্যু, অসুস্থ ১৫

সুজন কৈরী: [২] রাজধানীর আদাবরের বেড়িবাঁধ এলাকায় ভাঙারির দোকানে পুরোনো গ্যাস সিলিন্ডার ভাঙার সময় বিষাক্ত গ্যাসে কবির হোসেন (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। অসুস্থরা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। মঙ্গলবার ভোরে এই ঘটনা ঘটে।

[৩] ঘটনার পর দোকানদার কালুর ছেলে শান্তকে (১৯) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।

[৪] প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গ্যাস সিলিন্ডার কাটার সময় গ্যাস বের হয়ে আশেপাশের বেশ কয়েকজন অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাদের শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলে নিয়ে যাওয়া হয়। এদের মধ্যে একজন গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। 

[৫] বিষাক্ত গ্যাসে অসুস্থ হয়ে চিকিৎসা নেওয়া স্মার্ট টেকনোলজির গ্যারেজ ম্যানেজার আবুল হাশেম বলেন, শ্যামলী হাউজিং দ্বিতীয় প্রকল্পের বেড়িবাঁধের পাশেই স্মার্ট টেকনোলজির গাড়ির গ্যারেজ ও পরিবহন কর্মীদের থাকার স্থান। এখানে অন্তত ২৫ জন লোক বিভিন্ন রুমে ঘুমিয়ে ছিলেন। আমিও গ্যারেজে আসা গাড়ির হিসাবনিকাশ করে ঘুমিয়ে যাই। 

[৭] রাত সাড়ে ৩টার দিকে হঠাৎ বিষাক্ত গ্যাসের গন্ধে ঘুমের মধ্যেই অসুস্থতা বোধ করি। দ্রুত রুম থেকে বের হয়ে দেখি অনেকেই আমার মতো ছটফট করছে। কেউ দৌড়ে রাস্তায় বের হয়েছে। কেউ রুমের সামনেই অসুস্থ হয়ে পড়ে ছিল।

[৮] আশপাশে কেউ নেই। আমি অফিসে বিষয়টি জানানোর পরে কয়েকজন এসে আমাদের হাসপাতালে নিয়ে যায়। সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে অক্সিজেন নিয়ে কিছুটা সুস্থ হয়ে আমি চলে এসেছি। তবে অনেকেই গুরুতর অসুস্থ হয়ে যাওয়ায় ঢাকা মেডিকেলে নেওয়া হয়েছে। 

[৯] এর মধ্যে একজন মারা গেছেন। তিনি স্মার্ট টেকনোলজির কর্মী রুহুল আমিনের চাচাতো ভাই। তার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী। আর গুরুতর আহতরা হলেন- রুহুল আমিন, রাকিব, ওয়াদুদ, মন্নান, সিরাজ, জাহিদ, রাহিম, মেহেদী ও রকি। তারা সবাই স্মার্ট টেকনোলজির কর্মী।

[১০] স্মার্ট টেকনোলজি গ্যারেজের নিরাপত্তা কর্মীর বরাত দিয়ে আবুল হাশেম আরও বলেন, বেড়িবাঁধের ওপরে ভাঙ্গারি দোকান আছে। ওখানে রাতেও কাজ চলছিল। আমাদের রাতের নিরাপত্তা কর্মী দেখেছে একটি ট্রাকে করে ভাঙ্গারি আনা হয়। এই ট্রাক চলে যাওয়ার কিছু সময় পরই এই গ্যাস ছড়াতে থাকে। তখন দোকানের লোকজন সব ফেলে পালিয়ে যায়।

[১১] আদাবর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মিন্টু চন্দ্র বণিক জানান, বিষয়টি সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিটকে জানলে তারা এসে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছেন। এ ঘটনায় ভাঙারি দোকানদার কালুর ছেলে শান্তকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। তবে দোকানদার কালু পলাতক। ঘটনার তদন্ত চলছে।

[১২] শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক ডা. মোহাম্মদ শফিউর রহমান জানিয়েছেন, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নয়জন চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন, পাঁচজন এখনও চিকিৎসা নিচ্ছেন। মোট ১৪ জন রোগী এসেছিলেন। কার্বন মনোক্সাইড গ্যাসের বিষক্রিয়ায় এটি ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সম্পাদনা: সমর চক্রবর্তী

এসবি২

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়