শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারী, ২০২২, ০৪:৩৬ সকাল
আপডেট : ২৬ জানুয়ারী, ২০২২, ০৪:৩৬ সকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

শাবিপ্রবিতে শিক্ষার্থীরাই চালু করল ভ্রাম্যমাণ দোকান ‘চাষাভুষার টং’

নিউজ ডেস্ক: শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে চলছে শিক্ষার্থীদের টানা আন্দোলন। এর মধ্যেই ক্যাম্পাসের ভেতরের খাবারের দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যুগান্তর, ঢাকাপোস্ট

প্রতিবাদ হিসেবে এবার শিক্ষার্থীরা নিজেরাই চালু করলেন ‘চাষাভুষার টং’ নামে ভ্রাম্যমাণ দোকান। মঙ্গলবার রাতে শিক্ষার্থীরা এটি চালু করেন। এ দোকানে চা, বিস্কিটসহ হালকা খাবার বিক্রি করা হচ্ছে। ক্যাম্পাসে অবস্থানরত শিক্ষার্থীরা মূল্য পরিশোধ করে সেখান থেকে খাবার কিনছেন।

‘চাষাভুষার টং’ এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীরা জানান, আন্দোলন বন্ধে খাবারের দোকান ও ফুড কোর্ট বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। এ অবস্থায় শিক্ষার্থী এবং আন্দোলনের খবর সংগ্রহে আসা গণমাধ্যমকর্মীদের খাবার পেতে সমস্যা হচ্ছে। প্রতিবাদ হিসেবে ভ্রাম্যমাণ দোকানটি চালু করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল খাবার দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী নাফিসা আনজুম ঢাকা পোস্টকে বলেন, দোকানিরা প্রশাসনের নির্দেশনার অজুহাত দেখিয়ে দোকান খুলছেন না। আমাদের ধারণা চলমান আন্দোলন বন্ধ করার জন্য এসব দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে খাবারের দোকান বন্ধের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. আলমগীর কবিরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি এ নিয়ে কিছু জানি না।

এদিকে, উপাচার্যের বাসভবনের সামনে শিক্ষার্থীদের আমরণ অনশনের সপ্তম দিন চলছে। এ সাত দিনে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২০ জন শিক্ষার্থী। আটজন শিক্ষার্থীকে অনশনস্থলে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

শা‌বিপ্রবির শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সূত্রপাত ১৩ জানুয়ারি। সেদিন রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রভোস্ট জাফরিন আহমেদের বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ তুলে তার পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন হলের কয়েকশ ছাত্রী। গত শনিবার ছাত্রীদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ।

পরদিন বিকেলে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করেন। শিক্ষার্থীদের লাঠিপেটা ও তাদের লক্ষ্য করে রাবার বুলেট ও সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়ে পুলিশ। ওই দিন রাত সাড়ে আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ও হল ছাড়ার ঘোষণা দেওয়া হয়।

  • সর্বশেষ