শিরোনাম
◈ টেক্সাসে বন্দুকধারীর হামলায় শিক্ষার্থীসহ নিহত ১৫ ◈ সারাদেশে ছাত্রদলের ২দিনের বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা ◈ আবারও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদ্রোস ◈ ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জে ছাত্রদলের বিক্ষোভ ও মশাল মিছিল ◈ ঢাবিতে ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে জবি ছাত্রদলের মশাল মিছিল ◈ স্মারক স্বর্ণ মুদ্রার দাম ৪ হাজার টাকা বাড়লো কেন্দ্রীয় ব্যাংক ◈ হজ ফ্লাইট ৫ জুন শুরু ◈ সর্বজনীন পদ্মা সেতুতে ওঠার আগে অপপ্রচারকারীদের ক্ষমা চাওয়া উচিত: তথ্যমন্ত্রী ◈ সিরিয়ায় সামরিক অভিযানের ইঙ্গিত দিলেন এরদোগান ◈ হাতিরঝিলে ওয়াটার ট্যাক্সি ও বাণিজ্যিক স্থাপনা উচ্ছেদের নির্দেশ

প্রকাশিত : ২৪ জানুয়ারী, ২০২২, ০১:৩৫ রাত
আপডেট : ২৪ জানুয়ারী, ২০২২, ০১:৩৫ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

সন্তানের নামে মিথ্যা মামলা, অনশনে ৯০ বছরের মা

নিউজ ডেস্ক : নেত্রকোনার পূর্বধলায় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে সদস্য পদে পরাজিত প্রার্থীর বাড়ি-ঘরে বিজয়ী প্রার্থীর লোকজনের হামলার মামলায় আসামিদের গ্রেপ্তার ও সন্তানের নামে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে রবিবার অনশনে বসেন ৯০ বছরের বৃদ্ধা আনন্দের নেছা। কালের কণ্ঠ

গত ২৮ নভেম্বর পূর্বধলা উপজেলার বৈরাটী ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য পদে কাজলা গ্রামের মোহাম্মদ আলম (ফুটবল) ও বাহার উদ্দিন তালুকদার (তালা) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। বাহার উদ্দিন তালুকদার জয়লাভে ব্যর্থ হন।

বৃদ্ধা আনন্দের নেছা বাহার উদ্দিন তালুকদারের মা।

অভিযোগে জানা যায়, নির্বাচনকে কেন্দ্র ওই দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মাঝে বিরোধ দেখা দেয়। মোহাম্মদ আলমের জয়লাভ এই বিরোধকে আরো উসকে দেয়। ফলাফল ঘোষণার পরপরই তাঁর লোকজন পরাজিত বাহার উদ্দিন তালুকদারের বাড়িঘরে হামলা চালায়। হামলায় বাহার উদ্দিন তালুকদারসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হন। এ ঘটনায় উভয় পক্ষ পরস্পরের বিরুদ্ধে মামলা করে। বাড়িঘরে হামলা মামলার আসামিরা গ্রেপ্তার হয়নি। অপরদিকে মিথ্যে মামলার আসামি হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বাহার উদ্দিন তালুকদারসহ তাঁর পক্ষের লোকজন। এ পরিস্থিতিতে পরিবারের অন্য নারী সদস্যদের নিয়ে নিজ বসতঘরের আঙিনায় অনশনে বসেন আনন্দের নেছা। খবর পেয়ে বিকেলে প্রশাসনের লোকজন এসে হামলাকারীদের যথাযথ বিচার ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের আশ্বাস দিয়ে আনন্দের নেছাকে পানি পান করান।

আনন্দের নেছা বলেন, 'নির্বাচনের পর আমার বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেছে। আমরা মামলা দিয়েছি, পুলিশ ব্যবস্থা নেয় না। আমার ছেলেরা বাড়িঘরে আসতে পারছে না। আমরা মহিলারা বাড়িতে ভয়ের মধ্যে আছি। '

এ ব্যাপারে কথা বলতে অভিযুক্ত মোহাম্মদ আলমের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

পূর্বধলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিবিরুল ইসলাম বলেন, 'লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। অপরদিকে প্রতিপক্ষও আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছে। আমরা তদন্ত করছি। তদন্তের পর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। '

  • সর্বশেষ