প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] হাফ ভাড়া নিতে অনাগ্রহ, ভোগান্তিতে জবি শিক্ষার্থীরা

অপূর্ব চৌধুরী: [২] জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সানাউল্লাহ সাজিদ। অতি সম্প্রতি বিহঙ্গ বা‌সে ক‌রে মিরপুর থে‌কে সদরঘা‌টের উ‌দ্দে‌শ্যে আসার সময় হেলপার ভাড়া চাই‌লে শিক্ষার্থী পরিচয়ে হাফ ভাড়া নিতে বলেছিল। প্রতি উত্তরে হেল্পার বল‌লো বিহঙ্গ বা‌সে কোন স্টু‌ডেন্ট এবং হাফ পাশ কা‌টা হয়না।তাই সম্পূর্ণ ভাড়াই দি‌তে হ‌বে। তারপর জগন্না‌থ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বলার পর হেল্পার বল‌লো তাতে কী হ‌য়ে‌ছে?

[৩] নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী শারমিন (ছদ্মনাম) । খিলগাঁওয়ে নিজ বাসায় মাঝে মাঝে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে গেলেও অধিকাংশ সময়েই আসা-যাওয়া করেন লোকাল বাসেই৷ হাফ ভাড়া নিয়ে নারী শিক্ষার্থীদের বাস হেল্পারের সাথে নিয়মিত তর্কে জড়ানোর চিত্র নিয়মিতই চোখে পড়ে এই শিক্ষার্থীর। তবে সমাধানের কেউ না থাকায় নীরব ভূমিকা অবলম্বন করতে হয় বলে দাবি এ শিক্ষার্থীর।

[৪] শুধু সানাউল্লাহ সাজিদ কিংবা শারমিনই (ছদ্মনাম) না। নিজ বাসা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার ক্ষেত্রে হাফ ভাড়া নিয়ে বাস হেল্পার কিংবা টিকিট চেকারের সাথে রীতিমতো একধরনের যুদ্ধই করতে হয় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শত শত শিক্ষার্থীর।মাঝে মধ্যেই তর্কের পর্যায় রূপ নেয় শিক্ষার্থীদের মারধর কিংবা হেনস্তা করা পর্যন্ত।

[৫] জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে প্রায় ১৬ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। তবে আবাসন ব্যবস্থা না থাকা এবং পর্যাপ্ত পরিবহন সেবা না থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব বাসে যাতায়াতের সুযোগ পায় স্বল্প সংখ্যক শিক্ষার্থী।

[৬] তবে শিক্ষার্থীদের জন্য পরিবহন সেবার মাত্রা বাড়াতে জবি-কুমিল্লা, জবি-মানিকগঞ্জ,জবি-দোহার, জবি-মুন্সিগঞ্জসহ আরও বেশ কয়েকটি দূরপাল্লার রুটে বাস সার্ভিস চালু করেছে প্রশাসন। কিন্তু তাতেও যেন পরিবহন সংকট কাটছেই না৷

[৭] বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরই ভরসা লোকাল বাস। তবে বিভিন্ন সময়ে লোকাল বাসে যাতায়াত করা শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি কিংবা হেনস্তার ঘটনাও রয়েছে প্রচুর।

[৮] সূত্র জানায়,২০১৯ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারী হাফ ভাড়া দিতে চাওয়ায় তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের ১৩ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী মেরাজ ইবনে রশিদকে বিকাশ বাস থেকে ফেলে দেয় হেল্পার। এঘটনায় সে গুরুতর আহত হয়।

[৯] এছাড়াও মিরপুর-সদরঘাট রুটের বিহঙ্গ, গাজীপুর -সদরঘাট রুটের আজমেরী গ্লোরী,ভিক্টর ক্ল্যাসিক, সাভার-সদরঘাট রুটের সাভার পরিবহন সহ অন্যান্য লোকাল বাসেও নানান সময়ে হাফ ভাড়া নিয়ে হেনস্তা ও ভোগান্তির শিকার হয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

[১০] গত ২৮ অক্টোবর ঢাকার বিভিন্ন জায়গা থেকে ছেড়ে আসা সদরঘাটগামী বাসে নিজেদের জন্য ‘হাফপাস’ চালুর দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামালের কাছে একটি স্মারকলিপি দেয় সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

[১১] তবে গত ৫ নভেম্বর জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে সারা দেশে পরিবহন ধর্মঘট এবং পরবর্তীতে ডিজেল চালিত বাসগুলোর ভাড়া বৃদ্ধির সিদ্ধান্তে আবারো অনিশ্চয়তায় পড়েছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

[১২] তাদের দাবি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন সেবা অপ্রতুল। সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ চাইলেই সদরঘাটগামী বাসগুলোর মালিক সমিতির সাথে কথা বলে হাফ ভাড়ার ব্যবস্থা করতে পারেন।

[১৩] জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থী ফাইয়াজুল আজাদ রুদ্র বলেন,সদরঘাটগামী বাসগুলোতে এখন আর হাফ পাস নেই। ডিজেলের দাম বৃদ্ধির আগেই বাসে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পরিচয় দেবার পরও হাফ ভাড়া রাখা হতো না।উলটো আমাদের সাথে খারাপ ব্যবহার করত বাসের স্টাফরা।নতুন করে বাস ভাড়া বৃদ্ধির পর বিষয়টি লাগামহীন হয়ে গেছে। আমরা এর স্থায়ী সমাধান চাই।

[১৪] নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী শ্রুতিলেখা বিশ্বাস বলেন, লোকাল বাসে উঠে নারী শিক্ষার্থীদেরও হাফ ভাড়া নিয়ে তর্ক করতে হয়। এটি দৃষ্টিকটু ও চরম ভোগান্তির বিষয় আমাদের জন্য।তেলের দাম ও ভাড়া বাড়ানোর সাথে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়ার কোন সম্পর্ক নেই। এটি অনেক আগে থেকেই প্রচলিত। আমরা আশাবাদী প্রশাসন এ বিষয়ে উদ্যোগ নিবেন।

[১৫] জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, বাস কাউন্টারের পাশের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জের সাথে আমাদের শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নিশ্চিতের বিষয়ে কথা বলেছি। ফাঁড়ির ইনচার্জ সবগুলো বাসের ব্যবস্থাপককে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে হাফ ভাড়া নেওয়ার বিষয়ে বলবে। শিক্ষার্থীরা ঢাকার ভেতরে কোন জায়গায় গেলে তাদের কাছে থেকে হাফ ভাড়া নিবে।

[১৬] ড্রাইভাররা বলেন, শিক্ষার্থীদের থেকে আমাদের হাফ ভাড়া নিতে কোনো সমস্যা ছিলো না। কিন্তু এখন আমাদের মালিকরা দিনশেষে বেশি টাকা চায়। মালিকপক্ষ থেকে চাহিদা কম থাকলে আমাদের হাফ ভাড়া নিতে সমস্যা নেই।

[১৭] ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এনায়েত উল্যাহ বলেন, এখন বেসরকারি বাসে হাফ ভাড়া নেওয়ার সুযোগ নেই। আগে নেওয়া হত৷ কারণ আগে শিক্ষার্থীর সংখ্যাও কম ছিল। এখন তাদের সংখ্যা অনেক বেশি। সেক্ষেত্রে প্রতিটি বাস থেকে হাফ ভাড়া নিতে গেলে মালিকদেরও ক্ষতি হয়। হাফ ভাড়া শুধু সরকারি বাসে (বিআরটিসিতে) নেওয়ার সুযোগ আছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত