প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

১৩ মাসে ১১ বার বাড়ল জেট ফুয়েলের দাম

নিউজ ডেস্ক: আবারও জেট ফুয়েলের দাম বাড়িয়েছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) সহযোগী প্রতিষ্ঠান পদ্মা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড। গত বছরের অক্টোবর থেকে ১৩ মাসে এ পর্যন্ত ১১ বার বাড়ানো হলো জেট ফুয়েলের দাম।

আজ বুধবার অ্যাভিয়েশন খাত সংশ্লিষ্টরা এ তথ্য জানিয়েছেন।

তারা বলছেন, এতে আকাশপথের যাত্রীদের গুণতে হবে অতিরিক্ত টাকা। বিপিসির এ ধরণের অযৌক্তিক সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের এয়ারলাইনসগুলো বিশ্ব বাজারে প্রতিযোগিতার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলতে পারে।

সূত্র জানায়, বিপিসির সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতি লিটার জেট ফুয়েলের দাম ৭ টাকা বাড়ানো হয়েছে। এখন প্রতি লিটার জেট ফুয়েলের দাম দাঁড়ালো ৭৭ টাকা।

এ খাত সংশ্লিষ্টরা জানান, গত বছর অক্টোবরে প্রতি লিটার জেট ফুয়েলের দাম ছিল ৪৬ টাকা। অর্থাৎ বিপিসি গত ১৩ মাসে এর দাম ৬৭ শতাংশ বাড়িয়েছে।

ডিসেম্বরে প্রতি লিটারের দাম ছিল ৪৮ টাকা, জানুয়ারিতে হয় ৫৩ টাকা, ফেব্রুয়ারিতে ৫৫ টাকা, মার্চে ৬০ টাকা, এপ্রিলে ছিল ৬১ টাকা। তবে মে মাসে লিটারে এক টাকা দাম কমানো হয়েছিল। জুনে প্রতি লিটার জেট ফুয়েলের দাম বেড়ে হয় ৬৩ টাকা, জুলাইয়ে ৬৬ টাকা, আগস্টে ৬৭ টাকা এবং এ বছরের অক্টোবরে দাঁড়ায় ৭০ টাকা।

জানতে চাইলে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের জনসংযোগের মহাব্যবস্থাপক কামরুল ইসলাম দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘বিপিসি গত এক বছরে নিয়মিতভাবে জেট ফুয়েলের দাম বাড়িয়েছে। এ পরিস্থিতিতে আমরা আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারব না।’

তিনি বলেন, ‘জেট ফুয়েলের বর্ধিত দাম এয়ারলাইন্সের অপারেশন খরচ বাড়াবে এবং শেষ পর্যন্ত যাত্রীদের টিকিটের জন্য বেশি টাকা ব্যয় করতে হবে।’

অ্যাভিয়েশন বিশেষজ্ঞ ও ভ্রমণ ম্যাগাজিন সাপ্তাহিক মনিটরের সম্পাদক কাজী ওয়াহিদুল আলম বলেন, ‘করোনার প্রভাব কাটিয়ে উঠতে বিভিন্ন দেশ তাদের এয়ারলাইনস টিকিয়ে রাখতে বিভিন্ন পরিকল্পনা করছে। কিন্তু আমাদের সরকার এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে কিছুই করেনি।’

‘বরং, তারা কোনো যৌক্তিক কারণ ছাড়াই জেট ফুয়েলের দাম বাড়িয়েছে,’ বলেন তিনি। – দ্য ডেইলি স্টার

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত